ঢাকা | ফেব্রুয়ারী ২৮, ২০২৪ - ১:১২ অপরাহ্ন

রাসিকের হাজার কোটি টাকার বাজেট

  • আপডেট: Thursday, June 16, 2022 - 9:43 pm

 

স্টাফ রিপোর্টার: আয় ও ব্যয় সমপরিমাণ ধরে ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য রাজশাহী সিটি করপোরেশনের (রাসিক) ১ হাজার ৭ কোটি ১৯ লাখ ৬৯ হাজার টাকার প্রস্তাবিত বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর ২টায় নগর ভবনের সিটি হলরুমে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে আনুষ্ঠানিকভাবে এই বাজেট ঘোষণা করেন সিটি করপোরেশনের অর্থ ও সংস্থাপন স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।

এরআগে সকালে সিটি করপোরেশনের বিশেষ সাধারণ সভায় ২০২১-২০২২ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেট ও ২০২২-২০২৩ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেট সর্বসম্মতিক্রমে অনুমোদন হয়। সংবাদ সম্মেলনে মেয়র লিটন বলেন, ২০২১-২০২২ অর্থ বছরে বাজেটের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১ হাজার ৮০ কোটি ২২ লাখ ৮৯ হাজার ৫৩৬ টাকা ১৭ পয়সা। সংশোধিত বাজেটে এর আকার দাঁড়ায় ৭৬৯ কোটি ২ লাখ ৯৪ হাজার ৭৪৪ টাকা ৩৬ পয়সা।

গত অর্থবছরের বাজেট বাস্তবায়নের হার ৭১ শতাংশের বেশি, যা ইতোপূর্বে কখনও হয়নি। এবার আয় ও ব্যয় সমপরিমাণ ধরে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের জন্য বাজেটের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১ হাজার ৭ কোটি ১৯ লাখ ৬৯ হাজার ৩২৩ টাকা ১০ পয়সা। শহরের উন্নয়নকে সামনে রেখে এই বাজেট করা হচ্ছে বলেও জানান মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর এই সদস্য বলেন, দ্বিতীয় মেয়াদে দায়িত্বগ্রহণের পর থেকে আমি ও আমার পরিষদ নির্বাচনী প্রতিশ্রুতিসমূহ বাস্তবায়ন এবং রাজশাহীকে সবুজ, পরিচ্ছন্ন, আধুনিক, উন্নত, বাসযোগ্য ও মডেল মহানগরী হিসেবে গড়ে তুলতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। বিগত চার বছর নিরলস পরিশ্রম করে রাজশাহী মহানগরীকে পরিবেশবান্ধব ও বাসযোগ্য নগরীরূপে গড়ে তোলার স্বীকৃতিস্বরূপ প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রীয়ভাবে রাসিককে পরিবেশ পদক-২০২১ প্রদান করে পুরস্কৃত করেছেন।

তিনি বলেন, নগরজুড়ে যে পরিকল্পিত উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ চলছে, তার অন্যতম লক্ষ্য হচ্ছে শহরকে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পরিবেশবান্ধব, পরিচ্ছন্ন, বাসযোগ্য, আধুনিক, কর্মচঞ্চল ও আলো ঝলমলে মহানগরীতে পরিণত করা। যার অনেকটাই বাস্তবায়ন ইতোমধ্যে আমরা করতে পেরেছি। আগামীতে রাজশাহী মহানগরীকে শুধু বাংলাদেশের মধ্যে নয়, দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে অন্যতম মডেল মহানগরী হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। এই লক্ষ্য অর্জনে রাজশাহীবাসী ও সম্মানিত কাউন্সিলরদের সহযোগিতায় ধাপে ধাপে এগিয়ে যাচ্ছি।

নগরীর উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরে মেয়র লিটন বলেন, ‘সমন্বিত নগর অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের’ আওতায় ২ হাজার ৯৩১ কোটি ৬১ লাখ ৮১ হাজার টাকার প্রকল্প চলছে শহরে। ইতোমধ্যে ১ হাজার ২১৫ কোটি ২৬ লাখ টাকার টেন্ডার আহ্বান করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ১ হাহার ৪০ কোটি ৫৮ লাখ টাকার কার্যাদেশ প্রদান করা হয়েছে। প্রকল্পের আওতায় চলমান কাজের সামগ্রিক অগ্রগতি ৫৫ শতাংশ। অবশিষ্ট কাজ আগামী অর্থবছরের মধ্যে শেষ হবে বলে আশা করা যায়।

মেয়র বলেন, রাজশাহীতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হাইটেক পার্ক পুরোপুরি চালু হলে সেখানে ১৪ হাজারের অধিক তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থান হবে। এছাড়া রাজশাহী মেডিকেল বিশ^বিদ্যালয় ও বিকেএসপি প্রকল্প বাস্তবায়নের বিপুল সংখ্যক জনগোষ্ঠীর কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে এবং প্রকল্পের পাশর্^বর্তী এলাকাসমূহে নতুন নতুন অবকাঠামো নির্মাণের ফলে শহর আরো বিকশিত ও কর্মমুখর হবে। ইতোমধ্যে নগরীতে ব্যাপক অবকাঠামো নির্মিত হওয়ায় ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার ও কর্মসংস্থানের সুযোগ বৃদ্ধি পেয়েছে।

সিটি মেয়র আরো বলেন, রাজশাহীকে বদলে দেওয়ার অঙ্গীকার নিয়ে নির্বাচনী ওয়াদা পুরণে প্রায় চার বছর কাজ করছি। যা আজ দৃশ্যমান হয়েছে। রাজশাহীর চেহারা প্রতিনিয়তই বদলে যাচ্ছে। প্রস্তাবিত বাজেট বাস্তবায়ন ও চলমান উন্নয়ন কাজ শেষ হলে রাজশাহী মহানগরীকে নতুনরূপে দেখতে পাওয়া যাবে। অবকাঠামো উন্নয়নের পাশাপাশি ব্যবসা বাণিজ্য, শিল্প বিনিয়োগ বৃদ্ধি, কর্মসংস্থান, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পরিবেশ, বিনোদনের প্রসারসহ সকল ক্ষেত্রে এগিয়ে যাবে। আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে রাজশাহী সিটি গুরুত্ব পাবে।

সংবাদ সম্মেলনে মঞ্চে উপবিষ্ট ছিলেন রাসিকের অর্থ ও সংস্থাপন স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ২২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল হামিদ সরকার টেকন, প্যানেল মেয়র-২ রজব আলী, প্যানেল মেয়র-৩ তাহেরা খাতুন মিলি, সচিব মো. মশিউর রহমান, বাজেট কাম হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম খান, প্রধান প্রকৌশলী শরিফুল ইসলাম প্রমুখ।