ঢাকা | এপ্রিল ২০, ২০২৪ - ৭:১৮ অপরাহ্ন

চলতি বছরে দেশে নির্যাতনের শিকার ১১৮ সাংবাদিক

  • আপডেট: Sunday, June 12, 2022 - 6:54 pm

 

অনলাইন ডেস্ক: চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে মে মাস পর্যন্ত বাংলাদেশে অন্তত ১১৮ জন সাংবাদিক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন বলে এক বিবৃতিতে উল্লেখ করেছে গণমাধ্যম নিয়ে কাজ করা আন্তর্জাতিক সংগঠন আর্টিকেল নাইনটিন।

রোববার এক বিবৃতিতে সংস্থাটি সাংবাদিকদের সুরক্ষা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। এছাড়া জুন মাসেই তিন গণমাধ্যমকর্মী খুন হয়েছেন জানিয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনসহ সাংবাদিক খুন ও নির্যাতনের ঘটনায় বিচার দাবি করেছে আর্টিকেল নাইনটিন।

সংস্থাটি বলছে, বাংলাদেশে সাংবাদিকদের অধিকার লঙ্ঘন ও হত্যাসহ নির্যাতনের ধারা অব্যাহত। এই প্রবণতা মতপ্রকাশের স্বাধীনতা পরিস্থিতির ক্রমাবনত নাজুক অবস্থা ও বিচারহীনতার পরিস্থিতি নির্দেশ করে।

চলতি জুন মাসে রাজধানী, পটুয়াখালী ও কুমিল্লায় তিন গণমাধ্যমকর্মী খুনের ঘটনায় শঙ্কা ও উদ্বেগ প্রকাশ করে আর্টিকেল নাইনটিন সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে অপরাধীদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে। এছাড়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দেশজুড়ে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে ঢালাও মামলা ও নির্যাতন এবং সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন জমাদান ৮৯তম বারের মতো পেছানোর নিন্দা জানিয়েছে।

আর্টিকেল নাইনটিন বলেছে, ২০২২ সালের জানুয়ারি থেকে মে পর্যন্ত সারা দেশে সাংবাদিকদের ওপর ৬২টি শারীরিক হামলা হয়েছে। এ সময়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ২৩ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ১০টি মামলায় ৩ জন সাংবাদিককে গ্রেপ্তার করা হয়।

২০২১ সালে ৭১ জন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ৩৫টি মামলায় ১৬ জন সাংবাদিক গ্রেপ্তার হন। সচেতন নাগরিক, গণমাধ্যম ও সাংবাদিকদের ওপর এসব ঘটনার প্রভাবে দেশে একটি ভয়ের পরিবেশ ও সংস্কৃতি তৈরি হয়েছে বলে জানিয়েছে আর্টিকেল নাইনটিন।

আর্টিকেল নাইনটিন দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক পরিচালক ফারুখ ফয়সল বলেন, আর্টিকেল নাইনটিন শুরু থেকেই মতপ্রকাশের অধিকার ও স্বাধীন সাংবাদিকতার পরিপন্থী বলে চিহ্নিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের নিবর্তনমূলক ধারাগুলো সংশোধনের দাবি জানিয়ে আসছে। আইনটির অপপ্রয়োগ হয়েছে স্বীকার করে সাম্প্রতিক সময়ে সরকারের একাধিক মন্ত্রী এ আইনে সাংবাদিকদের তাৎক্ষণিক গ্রেপ্তার না করার পাশাপাশি আইনটির সংস্কারের আশ্বাসও দিয়েছেন। কিন্ত এরপরও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের ও গ্রেপ্তার অব্যাহত আছে। আইনটি সুষ্ঠু প্রয়োগের চেয়ে সাংবাদিকদের হয়রানি করাসহ অপপ্রয়োগই বেশি হচ্ছে।