ঢাকা | এপ্রিল ১৬, ২০২৪ - ১:৩৮ পূর্বাহ্ন

কর্পোরেট হাউস ধান–চালের ব্যবসা শুরু করেছে: খাদ্যমন্ত্রী

  • আপডেট: Sunday, May 29, 2022 - 8:10 pm

 

অনলাইন ডেস্ক: দেশের বেশির ভাগ মিল মালিক বাজার থেকে ধান কিনলেও উৎপাদনে যাচ্ছেন না, এখন বাজারে যে চাল পাওয়া যাচ্ছে, তা গত বছরের পুরোনো চাল বলে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

মিল মালিকদের কে কী পরিমাণ ধান কিনছেন এবং কে কী পরিমাণ চাল ক্রাশ করছেন বা ভাঙছেন এবং বাজারে ছাড়ছেন, তা খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তাদের প্রতিবেদন আকারে প্রেরণ করতে হবে।

রোববার সচিবালয়ে নিজ অফিসকক্ষে ‘বোরো ২০২২ মৌসুমে অভ্যন্তরীণ সংগ্রহ ও বাজার মনিটরিং–সংক্রান্ত অনলাইন মতবিনিময় সভায়’ ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, বিভিন্ন কর্পোরেট হাউস ধান–চালের ব্যবসা শুরু করেছে। তারা বাজার থেকে ধান কিনে মজুত করছেন এবং প্যাকেটজাত করছেন। প্যাকেটজাত চাল বেশি দামে বাজারে বিক্রিও হচ্ছে। এ সময় ধান–চালের ব্যবসায় সম্পৃক্ত কর্পোরেট হাউসগুলোর সঙ্গে দ্রুততম সময়ে বৈঠক করতে খাদ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন মন্ত্রী।

বোরো সংগ্রহ সফল করতে হবে, পাশাপাশি বাজার মনিটরিং চালিয়ে যেতে হবে। কেউ যাতে বাজার অস্থিতিশীল করতে না পারে, সেদিকে লক্ষ রাখতে হবে উল্লেখ করে মিন্ত্রী বলেন, কে কোন দল করে সেটি বিবেচ্য নয়। কেউ চালের বাজার অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। উত্তরাঞ্চলে ঝড় ও বৃষ্টিতে ধানের ক্ষতি হয়েছে। কোন জেলায় কী পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, তার সঠিক হিসাব জানা জরুরি। উৎপাদনের হিসাব ও ক্ষতির পরিমাণ নিরুপণ করা না গেলে সঠিক সিদ্ধান্ত নেয়া সম্ভব হবে না। এ সময় সঠিক তথ্য প্রেরণের জন্য কৃষি বিভাগের কর্মকর্তাদেরও নির্দেশনা দেন মন্ত্রী।