ঢাকা | এপ্রিল ১৫, ২০২৪ - ৫:০৬ পূর্বাহ্ন

একাধিক বিয়ে নিয়ে তালেবান সর্বোচ্চ নেতার ফতোয়া জারি

  • আপডেট: Monday, May 23, 2022 - 7:11 pm

 

অনলাইন ডেস্ক: সংসারে খুবই টানাটানি। সুতরাং একটার বেশি বিয়ে করা থেকে বিরত থাকতে হবে তালবানদের। সম্প্রতি এ ফতোয়া দিয়েছেন আফগানিস্তানের শাসক তালেবানের সর্বোচ্চ নেতা হিবাতুল্লা আখুন্দজাদা। অবশ্যই এ ফতোয়ায় খুশি বা অখুশি হওয়ার সুযোগ নেই। কারণ, সংগঠনের আমিরের ফতোয়া মান্য করাটাই কর্তব্য।

তবে তালিবান প্রধান আখুন্দজাদা আপাতত নিজের সংগঠনের সদস্য ও যোদ্ধাদেরই এ নির্দেশ দিয়েছেন, দেশের সাধারণ পুরুষদের নয়। কিন্তু তাদের অনেকেই মনে করছেন- সকলের ঘাড়ে এই ফতোয়া নামতে কত ক্ষণ!

সোমবার আনন্দবাজার অনলাইন এ খবর জানিয়েছে।

আফগানিস্তান দখলের পর প্রাসাদে ঢুকতে মহার্ঘ সব আরাম কেদারায় বেমালুম জুতো-সমেত পা তুলে বসতে দেখা গিয়েছিল তালেবান যোদ্ধাদের। গলার কালাসনিকভ। তবু মাটিতে নামেনি। এরপরও আইএস জঙ্গিরা যেভাবে চোরাগোপ্তা হামলা ও নাশকতা চালিয়ে যাচ্ছে, তাতে শাসক তালেবানের যোদ্ধারা বড় একটা সুখে নেই। তার মধ্যেই ‘শান্তির খোঁজে’ অনেক তালেবান একের পর এক বিয়ে করে চলেছেন।

তাই ফতোয়া দিয়েছেন তালেবানের আমির (সুপ্রিম কমান্ডার), বহুবিবাহ বন্ধ। তবে নৈতিক নয়, এর কারণ একেবারেই অর্থনৈতিক।

কাবুলের বখতার সংবাদ সংস্থা শনিবার জানিয়েছে, আখুন্দজাদার ফতোয়ায় বহুবিবাহকে ‘অকারণ অপব্যয়’ বলা হয়েছে। আফগানিস্তানের ‘তালেবান ইসলামি আমিরাত’ যে শরিয়তি ব্যবস্থা মেনে চলে, তাতে একজন পুরুষ চারটে অবধি বউ রাখতে পারেন।

বহুবিবাহ সাধারণ ঘটনা দেশটিতে। কিন্তু আমির তার নির্দেশে স্পষ্ট বলেছেন- তালেবানরা দ্বিতীয়, তৃতীয় বা চতুর্থ বার পরিগ্রহ করতে পারবেন না। এখানেই শেষ নয়, দেশের ‘আমর-উল মার-উফ’ মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দেয়া হয়েছে, যোদ্ধারা এ নির্দেশ মানছেন কি না সে দিকে সতর্ক নজর রাখতে। নির্দেশ অমান্যকারীদের নাম-ধাম আমিরের দপ্তরে জানাতে হবে, যাতে তার শাস্তি বিধান করা সম্ভব হয়।