ঢাকা | এপ্রিল ২৩, ২০২৪ - ২:০১ অপরাহ্ন

পদ্মা সেতু থেকে পূর্ণিমার চাঁদ দেখার দাওয়াত দিলেন কাদের

  • আপডেট: Saturday, May 21, 2022 - 8:00 pm

 

অনলাইন ডেস্ক: জুন মাসের শেষ সপ্তাহে পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করা হবে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। পদ্মা সেতুতে দাঁড়িয়ে দেশের মানুষ ও দলীয় নেতাকর্মীদের পূর্ণিমার চাঁদ দেখার দাওয়াত দিয়েছেন তিনি।

শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি মিলনায়তনে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন উপলক্ষে ছাত্রলীগ আয়োজিত এক আলোচনা সভায় এ কথা বলেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।

তিনি বলেন, আমরা নিজেদের টাকায় পদ্মা সেতু তৈরি করেছি। বঙ্গবন্ধুকন্যার সে স্বপ্ন আজ সত্যে পরিণত হয়েছে। আর বেশি দুরে নয়, চন্দ্রাদীপ্ত পূর্ণিমা রাতে পদ্মা সেতু থেকে দাঁড়িয়ে বাংলার মানুষ পূর্ণিমার চাঁদ দেখতে পাবে। আগামীকাল (রোববার) সারসংক্ষেপ (সামারি) পাঠাব নেত্রীকে। তিনি তখন সময় দেবেন, সেই সময় আমরা পদ্মা সেতু উদ্বোধন করব। আমি নেতা-কর্মীদের আগাম দাওয়াত দিয়ে গেলাম।

এ সময় বিশ্বে চলমান সঙ্কটের মধ্যেও বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে দাবি করে কাদের বলেন, যত দিন শেখ হাসিনা নেতৃত্বে থাকবে, তত দিন বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা, আফগানিস্তান কিংবা পাকিস্তানের সঙ্গে তুলনা নয়, বরং বাংলাদেশকে তুলনা করা হবে আমেরিকা-ইউরোপের সঙ্গে।

তিনি বলেন, ১৩ বছর আগের বাংলাদেশ আর আজকের বাংলাদেশ কোথায়! শেখ হাসিনা ফিরে এসেছিলেন বলেই দেশের চেহারা পাল্টে গেছে। তিনি ফিরে এসেছিলেন বলেই বাংলাদেশ আজ অন্ধকার থেকে আলোর পথের যাত্রী। শেখ হাসিনা এসেছিলেন বলে বাংলাদেশ আজ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হয়েছে। বঙ্গবন্ধু এই জাতিকে রাজনৈতিক স্বাধীনতা দিয়েছেন আর শেখ হাসিনা অর্থনৈতিক মুক্তি দিয়েছেন। আমাদের আজকের মুক্তিসংগ্রামের কান্ডারি তিনি।

আওয়ামী লীগ সন্ত্রাস করে পরবর্তী নির্বাচনে জিততে চায়- বিএনপি নেতাদের এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সন্ত্রাসী হিসাবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি প্রাপ্ত দল বিএনপি। সন্ত্রাস করে বন্দুকের নল দিয়ে ক্ষমতায় তারা এসেছিলো।

সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন-অর্জনের চিত্র তুলে ধরে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বিএনপি নেতাদের ইঙ্গিত করে বলেন, দেশের মানুষ ভালো আছে বলেই তাদের মন খারাপ।

ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়ের সভাপতিত্বে এই সভায় আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক মুহাম্মদ সামাদ, ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইন বক্তব্য রাখেন।