ঢাকা | এপ্রিল ১৮, ২০২৪ - ৪:১৭ পূর্বাহ্ন

গত এক বছর কোনো চাল আমদানি করিনি: খাদ্যমন্ত্রী

  • আপডেট: Sunday, May 15, 2022 - 7:48 pm

অনলাইন ডেস্ক: গত এক বছর থেকে বাংলাদেশ কোনো চাল আমদানি করেনি বলে দাবি করেছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। তিনি বলেছেন, ‘গত এক বছর থেকে আমরা বিদেশ থেকে কোনো চাল আমদানি করিনি। আমাদের কৃষকদের উৎপাদিত ধান দিয়েই চালের চাহিদা মিটছে।’ আজ রোববার দুপুরে সিলেট সদরের খাদ্য গুদাম পরিদর্শন শেষে তিনি এসব কথা বলেন।

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, ‘তবে গম আমাদের দেশে হয় না, বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয়। গম আমদানি করা হতো ইউক্রেন ও রাশিয়া থেকে। কিন্তু এ দু দেশের যুদ্ধের পর আমরা পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত থেকে ৩ লাখ মেট্রিক টন গম আমদানি করেছি। পরবর্তীতে যা দরকার, তাও ভারত থেকে আমদানি করা হবে।’

সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, সিলেটে ধান চাল সংরক্ষণের জন্য ২৫ হাজার মেট্রিক টন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন ‘রাইস সাইলো’ নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। সিলেট বিভাগীয় শহরে স্থাপন করা হবে আধুনিক ‘রাইস সাইলো’। এ জন্য জায়গা খোঁজা হচ্ছে। জায়গা পাওয়া গেলেই সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে এর কাজ শুরু হবে। সিলেটে ‘রাইস সাইলো’ হলে ধানসহ কয়েক হাজার মেট্রিক টন খাদ্যশস্য মজুত করে রাখা যাবে।

এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘ভারতের পক্ষ থেকে গম রপ্তানি বন্ধের বিষয়ে আগাম মন্তব্য করা ঠিক হবে না। ভারত বেসরকারিভাবে রপ্তানি বন্ধ করলেও সরকারিভাবে গম রপ্তানি বন্ধ করেনি। হয়তো এক মাস বা ১৫ দিন পর সেটি তারা তুলে দেবে। তাই আমাদের অসুবিধা হওয়ার কথা নয়। তাদের উৎপাদিত গম তাদের তো বিক্রি করতেই হবে।’

গুদাম পরিদর্শন করেন খাদ্যমন্ত্রী

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সুনামগঞ্জে সম্প্রতি বোরো ফসলের কিছু ক্ষয়-ক্ষতি হলেও চাষাবাদ হয়েছে অনেক বেশি। এ থেকে আমাদের ধান-চালের শক্তিশালী একটি মজুত গড়ে উঠবে। এ ছাড়া গত আউশ ও আমন ধানেরও আমাদের প্রচুর মজুত রয়েছে এবং সুবৃষ্টির কারণে আগামী আউশ ফসলও ভালো হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। তাই দেশে কোনোভাবেই খাদ্যসংকট তৈরি হবে না।’

কৃষকের ধানের সরকারি দামের বিষয়ে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, সরকার বিভিন্নভাবে ভর্তুকি দিয়ে কৃষকদের সাহায্য করে এবং তাদের কাছ থেকে ঘোষণা দিয়ে দাম নির্ধারণ করে ধান কেনে। কৃষকেরা যাতে বাজারে অন্যের কাছে ধান বিক্রি করে না ঠকে, তাই এমনটি করা হয়। এবার ধানের যে দাম নির্ধারণ করা হয়েছে, তা আর বাড়ানো হবে না।