ঢাকা | এপ্রিল ১৮, ২০২৪ - ৪:০৮ পূর্বাহ্ন

‘ছাত্রীরা এলোমেলো জীবনযাপন করছে’ মন্তব্যকারী রাবি ছাত্র‌-উপদেষ্টার পদত্যাগ দাবি

  • আপডেট: Saturday, May 14, 2022 - 1:30 pm

অনলাইন ডেস্ক: ছাত্রীদের নিয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ছাত্র-উপদেষ্টা তারেক নূরের বিতর্কিত মন্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছে শাখা ছাত্র ফেডারেশন। একইসঙ্গে ছাত্র-উপদেষ্টা এমন মন্তব্য করায় নৈতিকভাবে প্রশাসনের এই গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকার অধিকার হারিয়েছেন উল্লেখ করে তার পদত্যাগ দাবি করা হয়েছে।

আজ রাবি শাখা ছাত্র ফেডারেশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ দাবি জানানো হয়েছে। এছাড়াও সংগঠনের নেতারা সান্ধ্য আইন বাতিল চান।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ছাত্র ফেডারেশনের নেতারা বলেন, ‘রাবি ছাত্রীরা খুবই এলোমেলো জীবনযাপন করছে’ বলে মন্তব্য করেছেন ছাত্র-উপদেষ্টা। তার এমন মন্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। এই বক্তব্যের মাধ্যমে তিনি ছাত্রীদের হেয়প্রতিপন্ন করেছেন। যা একজন শিক্ষক করতে পারেন না। ভুল স্বীকার করে এই বক্তব্য তাকে প্রত্যাহার করতে হবে। তিনি কীসের ভিত্তিতে এমন মন্তব্য করেছেন তার জবাবদিহি করতে হবে। এমন মন্তব্য করার পর তিনি নৈতিকভাবে ছাত্র-উপদেষ্টার মতো গুরুত্বপূর্ণ পদে বহাল থাকতে পারেন না।

সান্ধ্য আইনের বিষয়ে তারা বলেন, সান্ধ্য আইন বিশ্ববিদ্যালয়ের ধারণার সাথে সাংঘর্ষিক। যা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনৈতিক এবং শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতি সর্বোপরি উন্মুক্ত জ্ঞান চর্চার পথ বন্ধ করে দেয়। ফলে শিক্ষার্থীদের মুক্ত বিকাশে সান্ধ্য আইন বাতিল করতে হবে।

এ বিষয়ে শাখা ছাত্র ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মহব্বত হোসেন মিলন বলেন, ছাত্র-উপদেষ্টা নারী শিক্ষার্থীদের হেয় করেছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকা ব্যক্তির এমন মন্তব্য আমাদের আহত করেছে। আমরা তার পদত্যাগ চাই।

প্রসঙ্গত, সান্ধ্য আইনের যৌক্তিকতা নিয়ে একটি গণমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ছাত্র-উপদেষ্টা বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীরা অনেক বেশি এলোমেলো জীবনযাপন করছে এবং বিভিন্ন জায়গা থেকে তাদের নামে অভিযোগ আসছে। ফলে তাদের হলে প্রবেশের বিষয়ে আগের চেয়ে সময় কমিয়ে নির্ধারণ করা হয়েছে।’ যদিও তার মন্তব্য গণমাধ্যমে ভুলভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে দাবি করে ছাত্র-উপদেষ্টা তারেক নূর বলেন, ‘কিছু কিছু ছাত্রী অগোছালো জীবনযাপন করে, সবাই অগোছালো তা বলিনি। গণমাধ্যম ভুলভাবে উপস্থাপন করেছে।’

সোনালী/জেআর