ঢাকা | এপ্রিল ১৯, ২০২৪ - ৯:০১ পূর্বাহ্ন

ফেসবুকে মন্তব্যের জেরে ছাত্রলীগ নেতাকে জখম

  • আপডেট: Monday, May 9, 2022 - 8:00 pm

স্টাফ রিপোর্টার: ফেসবুকে একটি মন্তব্যের জেরে রাজশাহীতে এক ছাত্রলীগ নেতার ওপর হামলা হয়েছে। হাতুড়ি দিয়ে তাকে পেটানো হয়েছে। এ ছাড়া চাইনিজ কুড়াল দিয়ে আঘাত করে তাকে জখম করা হয়েছে। এই ছাত্রলীগ নেতার নাম মাজেদুর রহমান নয়ন (২৮)। তিনি রাজশাহী জেলা ছাত্রলীগের সাবেক মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক। রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলায় তার বাড়ি।

রোববার রাত ৯টার দিকে পুঠিয়ার বেলপুকুর এলাকায় তার ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সুমনউজ্জামান সুমনের নেতৃত্বে এই হামলা চালানো হয়। সুমনের বাবা বদিউজ্জামান বদি বেলপুকুর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী হয়ে চেয়ারম্যান হয়েছেন। মাজেদুর রহমান ভোটে নৌকার পক্ষে কাজ করেছিলেন। এ নিয়ে তাদের মধ্যে আগে থেকেই বিরোধ ছিল।

হামলার পর মাজেদুর রহমানকে গুরুতর আহত অবস্থায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সোমবার এ নিয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ করার প্রস্তুতি চলছিল। আহতের চাচাতো বড়ভাই মুরাদ হোসেন জানান, মূলত নৌকার পক্ষে ভোটে প্রচারণায় অংশ নেওয়ার কারণেই মাজেদুরের ওপর ক্ষুব্ধ ছিলেন যুবলীগ নেতা সুমনউজ্জামান। ফেসবুকের একটি পোস্ট নিয়ে উত্তেজনা দেখা দিলে তাকে হত্যার চেষ্টা চালানো হয়েছে।

হামলার বিষয়ে জানতে চাইলে যুবলীগ নেতা সুমনউজ্জামান সুমন বলেন, রাজশাহীর এক পৌর মেয়রও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। অথচ তাকে এখন আওয়ামী লীগের দলীয় অনুষ্ঠানের মঞ্চেই দেখা যাচ্ছে। অথচ নৌকার বিরোধীতা করার কারণে আমরা কোণঠাসা। এই নিয়েই আমি ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়েছিলাম। সেখানে খারাপ মন্তব্য করেন ছাত্রলীগ নেতা মাজেদুর। এ নিয়ে আমি তাকে ফোন করলে আমাকে খারাপ ভাষায় কথা বলেন।

সুমন বলেন, সন্ধ্যার ওই ঘটনার পর রাতে আমার বাবা বেলপুকুর বাজার দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন। তখন ছাত্রলীগ নেতা মাজেদুর আমার বাবাকে আপত্তিকর কথা বলেন। এ সময় লোকজনই এর প্রতিবাদ করে তাকে মারধর করেছে। আমি বেলপুকুর বাজারে থাকলেও ঘটনাস্থলে যাওয়ার আগেই তাকে মারধর করা হয়ে যায়। এখন আমার নাম জড়ানো হচ্ছে।

বেলপুকুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুজ্জামান জানান, রাজনৈতিক বিরোধের মধ্যে ফেসবুকে করা একটি মন্তব্যের জের ধরে মাজেদুরের ওপর এই হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ নিয়ে লিখিত কোন অভিযোগ হলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।