ঢাকা | এপ্রিল ২০, ২০২৪ - ৪:৪৩ পূর্বাহ্ন

বিয়ে দেওয়ায় কিশোরীর বাড়িতে আ.লীগ নেতার ছেলের হামলা

  • আপডেট: Sunday, May 8, 2022 - 8:58 pm

স্টাফ রিপোর্টার: বিবাহিত হয়েও রাজশাহীর এক আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে এক কিশোরীকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন। বাধ্য হয়ে ওই কিশোরীর (১৬) বিয়ের আয়োজন করে পরিবার। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওই আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে বিয়েবাড়িতে হামলা চালিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

শনিবার সন্ধ্যায় নগরীর মেহেরচণ্ডি কড়ইতলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। হামলায় দুজন আহত হয়েছেন। এ নিয়ে ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষ থেকে নগরীর চন্দ্রিমা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ হয়েছে। এর আগেই মো. সাকিব (২০) নামের ওই বখাটেকে কৌশলে পালাতে সহায়তা করেছেন তার বাবা মহিউদ্দিন বাবু। তিনি নগরীর ২৬ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্য ও স্থানীয়রা জানান, সাকিবের স্ত্রী আছে। বাড়িতে পাঁচ বছরের একটি ছেলেও আছে। এখন তাঁর স্ত্রী আবার অন্তঃসত্তা। কিন্তু সাকিব ওই প্রতিবেশী কিশোরীকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন। কিন্তু কিশোরীর পরিবার এতে সাড়া দেয়নি। সাকিবের উৎপাত থেকে বাঁচতে শনিবার ১৬ বছরের ওই কিশোরীর বিয়ের আয়োজন করা হয়।

বিয়ের পর চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে আসা বরযাত্রী ওই কিশোরীকে যখন গাড়িতে তুলছিল তখনই সাকিব তার দলবল নিয়ে সেখানে হামলা চালায়। এ সময় দ্রুত কনেসহ বিয়েবাড়ি ত্যাগ করেন বরযাত্রীরা। কিন্তু এই হামলার বিষয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন প্রতিবেশীরা। এ সময় মহিউদ্দিন বাবু সেখানে গিয়ে কৌশলে ছেলেকে পালিয়ে যেতে সহায়তা করেন।

এরপর রাতে আবার পাড়ার মোড়ে ওই কিশোরীর স্বজনদের ওপর হামলা চালানো হয়। সে সময় সাকিব ছিলেন না। এই হামলায় শাহ আলমগীর (৩৭) ও মো. কালাম (৪০) নামের দুই ব্যক্তি আহত হন। পরে ভুক্তভোগী কিশোরীর বাবা চন্দ্রিমা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন। এ বিষয়ে কথা বলতে সাকিবের বাবা ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন বাবুর মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে সেটি বন্ধ পাওয়া গেছে।

চন্দ্রিমা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মইনুল বাশার বলেন, প্রথমে বলা হচ্ছিল ওই কিশোরীর সঙ্গে সাকিবের প্রেম আছে। কিন্তু খোঁজ নিয়ে দেখলাম আসলে প্রেম ছিল না। সাকিবই মেয়েটাকে উত্যক্ত করতো, বিয়ের প্রস্তাব দিত। তার বিয়ের কারণে হামলা চালানো হলে এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। তখন সাকিবের বাবা লোকজনকে শান্ত করতে বলেন, তাঁর ছেলে বখাটে। তাকে ডিবি পুলিশে তুলে দেওয়া হচ্ছে। তারপর ছেলেকে কোথায় পাঠিয়েছেন তা জানা যায়নি। ডিবি পুলিশ এ রকম কাউকে আটক করেনি বলে জানিয়েছে। পরে সাকিবের অনুপস্থিতিতে তার ছেলেরা আবার রাতে হামলা চালায়। এ ব্যাপারে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ হয়েছে। তদন্ত শেষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।