ঢাকা | এপ্রিল ১৯, ২০২৪ - ৯:১৬ পূর্বাহ্ন

রেলমন্ত্রীর আত্মীয় পরিচয়ে বিনা টিকিটে ভ্রমণ, জরিমানা করায় টিটিই বরখাস্ত

  • আপডেট: Friday, May 6, 2022 - 9:09 pm

স্টাফ রিপোর্টার: ‘রেলমন্ত্রীর আত্মীয়’ পরিচয়ে বিনা টিকিট ভ্রমণকারী তিন ট্রেনযাত্রীর সঙ্গে ‘অসদাচরণের’ অভিযোগে পাবনার ঈশ্বরদীতে ভ্রাম্যমাণ টিকিট পরীক্ষককে (টিটিই) সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

নিয়ম অনুযায়ী, বিনা টিকিটে ভ্রমণকারী তিন যাত্রীকে জরিমানা করেছিলেন টিটিই। এই ঘটনার কয়েক ঘণ্টা পর গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে ঈশ্বরদীর পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে বাণিজ্যিক কর্মকর্তা (ডিসিও) নাসির উদ্দিনের নির্দেশে তাঁকে ফোনকলে চাকরি থেকে বরখাস্তের আদেশ জানানো হয়। শুক্রবার থেকে এ আদেশ কার্যকর করা হয়েছে।

বরখাস্ত হওয়া টিটিই মো. শফিকুল ইসলাম রেলওয়ে জংশন ঈশ্বরদীর টিটিই হেডকোয়ার্টারের সঙ্গে যুক্ত। বরখাস্তের বিষয়টি ফোনে নিশ্চিত করেছেন পাকশীর ডিসিও নাসির উদ্দিন। ঘটনার রাতে টিটিই শফিকুল ইসলাম জানান, ঢাকাগামী আন্তনগর সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনে কর্তব্যরত ছিলেন। ট্রেনে ডিউটিরত অবস্থায়ই তিনি বরখাস্তের আদেশটি ফোনে জানতে পারেন।

রেলের একাধিক সূত্রে জানা গেছে, ঢাকাগামী আন্তনগর সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনে গতকাল বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে ঈশ্বরদী রেল জংশন থেকে তিন যাত্রী বিনা টিকিটে এসি কেবিনে চেপে বসেন। ট্রেনে কর্তব্যরত টিটিই শফিকুল ইসলাম তাঁদের টিকিট দেখতে চাইলে তাঁরা রেলমন্ত্রীর আত্মীয় পরিচয় দেন। টিটিই বিষয়টি পাকশী বিভাগীয় রেলের সহকারী বাণিজ্যিক কর্মকর্তা (এসিও) মো. নুরুল আলমের সঙ্গে আলাপ করলে তিনি সর্বনিম্ন ভাড়া নিয়ে টিকিট কাটার পরামর্শ দেন। এসিওর পরামর্শ অনুযায়ী টিটিই শফিকুল ইসলাম ওই তিন যাত্রীকে এসি টিকিটের পরিবর্তে মোট ১ হাজার ৫০ টাকা নিয়ে জরিমানাসহ সুলভ শ্রেণির নন এসি কোচে সাধারণ আসনের টিকিট করে দেন। এ সময় ট্রেনে কর্তব্যরত অ্যাটেনডেন্টসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

সূত্র জানায়, ওই তিন যাত্রী তাৎক্ষণিকভাবে ট্রেনে লিখিত কোনো অভিযোগ না করলেও তাঁরা ঢাকায় পৌঁছে রেলের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে টিটিই শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে ‘অসদাচরণের’ অভিযোগ করেছেন। সেই অভিযোগ পেয়ে পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে বাণিজ্যিক কর্মকর্তা (ডিসিও) নাসির উদ্দিন সংশ্লিষ্ট টিটিইকে সাময়িক বরখাস্তের আদেশ দেন। বরখাস্তের আদেশের বিষয়টি ঈশ্বরদীর টিটিই হেডকোয়ার্টারের ভারপ্রাপ্ত সিনিয়র টিটিই ইন্সপেক্টর মো. বরতুল্লাহ আলামিন ফোনে শফিকুল ইসলামকে জানান। সেসময় তিনি সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনে ডিউটিতে ছিলেন।

জানতে চাইলে পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে বাণিজ্যিক কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন বলেন, ‘লিখিত অভিযোগ পাইনি। তবে সুন্দরবন ট্রেনে বিনা টিকিটে ভ্রমণকারী তিন যাত্রীর সঙ্গে কর্তব্যরত টিটিই অসদাচরণ করেছেন বলে তাঁরা রেলওয়ের মহাপরিচালকসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ফোনে অভিযোগ দেন। বিষয়টি আমাকেও অবহিত করা হয়। ওই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে টিটিই শফিকুল ইসলামকে চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।’

ঘটনা সম্পর্কে শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘বরখাস্তের বিষয়টি আমি ট্রেনে ডিউটিরত অবস্থায় মোবাইল ফোনে জানতে পেরেছি, এ কারণে আজ (শুক্রবার) থেকে ডিউটিতে যাওয়া হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘ঈশ্বরদী থেকে অল্পবয়সী তিন ট্রেনযাত্রী রেলমন্ত্রীর আত্মীয় পরিচয়ে সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনের এসি কেবিনে ওঠেন। মন্ত্রীর আত্মীয় পরিচয় দেওয়ায় আমি সম্মান দেখিয়ে এসিও স্যারের পরামর্শে এসির টিকিট না কেটে সুলভ শ্রেণির নন-এসি কোচে সাধারণ আসনের বানিয়ে দেই। আমি তো তাঁদের সঙ্গে কোনোরকম অসদাচরণ করিনি।’ শফিকুল ইসলাম আরও বলেন, বরখাস্তের বিষয়টি জানার পর তিনি পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে ম্যানেজারসহ রেলের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানিয়েছেন।