ঢাকা | এপ্রিল ১৮, ২০২৪ - ৪:৪২ পূর্বাহ্ন

থানার ভেতরে স্বামীর সামনে স্ত্রীর বিষ পান!

  • আপডেট: Friday, April 29, 2022 - 12:22 pm

অনলাইন ডেস্ক: লালমনিরহাটের আদিতমারী থানার ভেতরে স্বামীর সামনে বিষ পান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন সাবিনা ইয়াসমিন (২৩) নামে এক নারী।

বৃহস্পতিবার বিকেলে থানা পুলিশ তাকে উদ্ধার করে আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। আহত সাবিনা ইয়াসমিন আদিতমারী উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের শঠিবাড়ি এলাকার রুবেল মিয়ার স্ত্রী। একই উপজেলার পলাশী ইউনিয়নের নামুড়ি ভেটেশ্বর গ্রামের ইসলাম মিয়ার মেয়ে।

পুলিশ জানান, প্রথম স্ত্রী থাকা অবস্থায় সাবিনা ইয়াসমিনকে দুই বছর আগে বিয়ে করেন রুবেল মিয়া। দুই স্ত্রীর কারণে প্রায় সময় সংসারে বিবাদ লেগেই থাকতো। অবশেষে কৌশলে দ্বিতীয় স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিনকে তার বাবার বাড়িতে রাখেন স্বামী রুবেল। বাবার বাড়িতে থাকলেও সাবিনার কোন খোঁজ খবর রাখতেন না স্বামী রুবেল। এ নিয়ে দু’জনের মাঝে সম্পর্কের দূরত্ব তৈরি হয়।

বৃহস্পতিবার দুপুরে আদিতমারী উপজেলার ভাদাই ইউনিয়নের শীববাড়ি এলাকায় সাবিনাকে ডেকে নেন স্বামী রুবেল। এ সময় তাদের মাঝে কথা কাটাকাটি হয়। তখন স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে আদিতমারী থানা পুলিশ তাদেরকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

থানা পুলিশের হস্তক্ষেপে উভয় পক্ষের পরিবারের উপস্থিতিতে দুই পরিবার তাদের দুইজনের দায়িত্ব নিয়ে বাড়িতে ফিরার সিদ্ধান্ত হয়। এ সময় সাবিনা ইয়াসমিন তার স্বামীর সাথে স্বামীর বাড়ি যাওয়ার বায়না ধরে। কিন্তু তাতে রাজি হননি স্বামী রুবেল মিয়া।

পরে তাকে তালাকের প্রস্তাব দিলে স্বামী ও পুলিশের সামনে বিষ পানে করেন সাবিনা। পুলিশ তাৎক্ষনিক আহত সাবিনা ইয়াসমিনকে উদ্ধার করে আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

হাসপাতালে বেডে থাকা সাবিনা ইয়াসমিন বলেন, দুই বছর সংসার করার পর যদি স্বামী তালাক দেয়ার ঘোষণা দেন। তাহলে এই জীবন রেখে কী লাভ। তাই থানার ভেতরে স্বামী ও একাধিক পুলিশের সামনেই বিষ খেয়েছি মরার জন্য। কিন্তু পুলিশের কারণে মরতেও পারলাম না। স্বামী তালাক দিলে আমি আত্মহত্যা করব।

আহত ওই নারীর স্বামী রুবেল মিয়া বলেন, আপাতত নিজ নিজ বাড়িতে ফেরার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তাকে তালাক দেয়া হয়নি। কিন্তু আমার সাথে যেতে না পেরে বিষ পান করেছে।

আদিতমারী হাসপাতালের জরুরি বিভাগের দায়িত্বে থাকা উপ সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার সৌরভ দত্ত বলেন, সাবিনা ইয়াসমিনের পাকস্থলি ওয়াশ করে ভর্তি করা হয়েছে। তিনি আপাতত আশঙ্কা মুক্ত রয়েছেন।

আদিতমারী থানার ওসি মোক্তারুল ইসলাম বলেন, তাদের দুই পরিবার বসে তাদের বিবাদের নিষ্পত্তি করেছেন বলে শুনেছি। এরপর এমন ঘটনা ঘটলে তাকে দ্রুত হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার চিকিৎসা চলছে।

সোনালী/জেআর