ঢাকা | এপ্রিল ১৮, ২০২৪ - ৩:৫২ পূর্বাহ্ন

ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে নতুন উচ্চতায় ইউরোজোনের মুদ্রাস্ফীতি

  • আপডেট: Friday, April 29, 2022 - 8:16 pm

 

অনলাইন ডেস্ক: ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব ব্যাপক আকারে দেখা দিয়েছে ইউরোপের অর্থনীতিতে। চলতি মাসে ইউরোজোনের মুদ্রাস্ফীতি রেকর্ড পরিমাণে বৃদ্ধি পেয়েছে। সরকারী তথ্য মতে চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ছিল একেবারেই মন্থর।

শুক্রবার ইউরোপীয় ইউনিয়নের পরিসংখ্যান সংস্থা ইউরোস্ট্যাট জানিয়েছে, জ্বালানীর আকাশচুম্বি মূল্যের কারণে এপ্রিলে বার্ষিক মুদ্রাস্ফীতি সাড়ে ৭ শতাংশ বেড়েছে। ১৯৯৭ সাল থেকে যাত্রা শুরু করা এই সংস্থাটির হিসাবের খাতায় এটিই এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ। দ্রব্যমূল্যও গত বছরের একই মাসের তুলনায় ৩৮ শতাংশ বেশি।

এই পরিসংখ্যান থেকে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে বিশ্ব শক্তির সংকটের পাশাপাশি ইউরোজোনের ৩৪ কোটি ৩০ লাখ মানুষকে প্রভাবিত করার মাত্রা অনুমান করা যায়। কোভিড মহামারীর অর্থনৈতিক ধাক্কা কাটানোর প্রচেষ্টার বোঝার মাত্রা আরেক ধাপ বাড়িয়ে দিয়েছে এই যুদ্ধ। এদিকে চোখের পানি ফেলছে মার্কিন অর্থনীতিও, তাদের মুদ্রাস্ফীতি বেড়েছে সাড়ে ৮ শতাংশ।

ইউরোস্ট্যাট বলেছে, ইউরো ব্যবহারকারী ১৯টি ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য দেশ ২০২২ সালের প্রথম তিন মাসে তাদের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ০.২ শতাংশ মন্থর করেছে। যার প্রধান কারণ, অধিক সংক্রমিত কোভিডের ওমিক্রন ধরণের বিস্তারের সময় বিধিনিষেধের সঙ্গে মিলিত উচ্চ মুদ্রাস্ফীতি চাহিদাকে আটকে রেখেছিল।

প্রধান দেশগুলির মধ্যে, স্পেন এবং জার্মানির এই সময়ের মধ্যে তাদের মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) যথাক্রমে ০.৩ শতাংশ এবং ০.২ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। ফ্রান্স সমতল ছিল এবং ইতালির কমেছে মাইনাস ০.২ শতাংশ।

ক্যাপিটাল ইকোনমিক্সের প্রধান ইউরোপীয় অর্থনীতিবিদ অ্যান্ড্রু কেনিংহাম বলেছেন, ইউরোজোনের প্রবৃদ্ধির সামান্য বৃদ্ধির মানে হল এই অঞ্চলটি বছরের প্রথমার্ধে প্রযুক্তিগত মন্দা এড়াতে পারবে।

তবে তিনি ক্রমবর্ধমান মুদ্রাস্ফীতি এবং ইউক্রেন যুদ্ধের ফলপ্রসূতায় আগামী তিন মাসের জিডিপি সংকুচিত হতে পারে বলেও সতর্ক করেন।

বিশ্ব অর্থনীতি যেমন করোনভাইরাস মহামারী থেকে ফিরে আসছিল, তেমনভাবে ইউক্রেনের যুদ্ধ, রাশিয়ার নিষেধাজ্ঞা, চীনের জিরো-কোভিড নীতি, স্পিকিং মুদ্রাস্ফীতি এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভের সুদের বৃদ্ধি সমূহের মতো বিষয়গুলো বিশ্ব অর্থনৈতিক চেহারা আরও ঘোলা করেছে।

এমনকি উচ্চ গরম, বিদ্যুৎ এবং স্বয়ংক্রিয় জ্বালানীর দামের সম্ভাবনা নিয়ে উদ্বিগ্ন ইউরোপীয় সরকারগুলি ইউক্রেনের আক্রমণের জন্য রাশিয়ার ওপর অভূতপূর্ব নিষেধাজ্ঞার অংশ হিসাবে রাশিয়া থেকে জ্বালানি আমদানি বন্ধ করা থেকে বিরত রয়েছে।

তবে অর্থনীতিবিদরা আশঙ্কা করছেন, যুদ্ধের ফলে রাশিয়া থেকে তেল বা গ্যাস সরবরাহে বিঘ্ন ঘটতে পারে এবং দাম আরও বাড়তে পারে। এই মুদ্রাস্ফীতি ইউরোপীয় সেন্ট্রাল ব্যাঙ্কের ওপর চাপ সৃষ্টি করছে যাতে আগামী মাসে রেকর্ড নিম্ন সুদের হার বাড়ানো যায়। শক্তি সঙ্কট, যুদ্ধ এবং কোভিড-১৯ এর সর্বশেষ প্রাদুর্ভাবের মধ্যে ভেঙ্গে পড়া অর্থনীতির পুনরুদ্ধার ও মুদ্রাস্ফীতি দমন করার জন্য সুদের উচ্চ হার প্রভাব ফেলতে পারে।