ঢাকা | এপ্রিল ১৬, ২০২৪ - ১:৩২ পূর্বাহ্ন

রাজশাহীতে অসহনীয় যানজট

  • আপডেট: Thursday, April 28, 2022 - 10:29 pm

স্টাফ রিপোর্টার: ঈদের আগে কেনাকাটার জন্য রাজশাহী মহানগরীর সাহেববাজারের দিকে মানুষের ঢল নেমেছে। এই জনস্রোতের কারণে তীব্র যানজট দেখা দিয়েছে শহরের এই প্রাণকেন্দ্রে। এ ছাড়া শহরের অন্যান্য এলাকাতেও রিকশা-অটোরিকশার তীব্র যানজট দেখা দিয়েছে। ট্রাফিক পুলিশ চেষ্টা করলেও যানজট কমছে না।

বুধবার সকালে সরেজমিনে দেখা গেছে, নগরীর সাহেববাজার জিরোপয়েন্ট থেকে পশ্চিমে রাজশাহী কলেজ পর্যন্ত প্রায় আধা কিলোমিটার সড়কে সব সময় যানজট লেগে থাকছে। চারলেনের এই সড়কটির দুপাশে মার্কেটগুলোতে ঈদের কেনাকাটা করতে বিপুল সংখ্যক মানুষ আসছেন। ঈদের আগে ফুটপাত, এমনকি রাস্তা দখল করেও বিকিকিনি জমে উঠেছে। ফলে রাস্তা সংকীর্ণ হয়েছে। আর রাস্তা দিয়েই চলাচল করছেন মানুষ।

এ ছাড়া ঈদের কেনাকাটা করতে বাজারে আসা মানুষ যত্রতত্র নিজেদের মোটরসাইকেল ও প্রাইভেটকার পার্ক করে রাখছেন। ফলে রাস্তা আরও সরু হয়ে যাচ্ছে। এতে যানজট চরমে পৌঁছেছে। জিরোপয়েন্ট থেকে মনিচত্বর পর্যন্ত রিকশা-অটোরিকশার দুই মিনিটের পথ পেরুতেই সময় লাগছে অন্তত ৩০ মিনিট।

এদিকে শহরের গণকপাড়া, সমবায় সুপার মার্কেটের সামনের সড়ক, শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান চত্বর এলাকা, লক্ষ্মীপুর, শিরোইল বাস টার্মিনাল এলাকা, জেলা মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি স্টেডিয়াম এলাকা এবং নিউমার্কেট এলাকায় তীব্র যানজট লেগেই থাকছে। তবে নগরীর কল্পনা সিনেমা হলের মোড় থেকে তালাইমারী পর্যন্ত সড়কটি চারলেনে উন্নীত হওয়ায় এবার ঈদের আগে সেটিতে যানজট দেখা যায়নি। তবে চারলেন নয় শহরের এমন অন্যান্য সড়কগুলোতেও যানজট দেখা দিচ্ছে। এ কারণে রিকশা-অটোরিকশার ভাড়াও নেওয়া হচ্ছে বেশি।

সাহেববাজার এলাকায় রিকশাচালক ফারুক হোসেন বলেন, জিরোপয়েন্ট থেকে মনিচত্বর পর্যন্ত এলাকা যেতেই দুই মিনিটের রাস্তায় এখন সময় লাগছে আধাঘণ্টা। এই গরমের মধ্যে রাস্তাটিতে ঢুকে আটকে থাকাও কষ্টকর। তাই যতটা সম্ভব এদিকে ঢুকছি না। ঈদের আগে এই দিক দিয়ে রিকশা-অটোরিকশাসহ অন্যান্য গাড়ি চলাচল পুরোপুরি বন্ধ করে দিলেই ভাল হতো বলে মনে করেন তিনি।

সাহেববাজারের আরডিএ মার্কেটে গিয়ে দেখা গেছে, মানুষ হুড়োহুড়ি করে ভেতরে ঈদের কেনাকাটা করছেন। এখানে যত ক্রেতা আসছেন তা আর শহরের কোন মার্কেটে যাচ্ছেন না। আরডিএ মার্কেটের সামনে রিকশাচালক রিপন আলী বললেন, সবাই শুধু আরডিএ মার্কেটেই আসতে চায়। এই ভিড়ের মধ্যে রিকশা নিয়ে আসাও বিপদ। তাই যাত্রী ওঠার আগেই বলে দিচ্ছি ভাড়া একটু বেশি দিতে হবে।

ঈদবাজারে শহরের যানজট ঠেকাতে রীতিমত হিমশিম খেতে হচ্ছে ট্রাফিক পুলিশকে। রাজশাহী নগর পুলিশের (আরএমপি) ট্রাফিক বিভাগের উপকমিশনার অনির্বান চাকমা বলেন, রাজশাহী এমনিতেই রিকশা-অটোরিকশার শহর। ঈদের আগে এখন গ্রাম থেকেও প্রচুর অটোরিকশা শহরে ঢুকছে। ফলে সবখানেই যানজট দেখা দিচ্ছে। পরিস্থিতি সামলাতে অতিরিক্ত পুলিশ শহরজুড়ে কাজ করছে। চাঁদরাত পর্যন্ত একটু কষ্ট করতেই হবে। ঈদের পর পরিস্থিতি আবার স্বাভাবিক হবে।