ঢাকা | জুলাই ২৪, ২০২৪ - ১১:০৩ পূর্বাহ্ন

স্কুলে অর্থদাতার পুরো নাম এল ১৫৪ বছর পর

  • আপডেট: Wednesday, April 6, 2022 - 9:16 pm

স্টাফ রিপোর্টার: নাটোরের দিঘাপতিয়ার রাজা প্রমথনাথ রায় রাজশাহীর একটি স্কুল প্রতিষ্ঠায় ৬ হাজার রুপি দান করেছিলেন। সেটি ১৮৬৮ সালের কথা। তখন স্কুলটির নামকরণ হয় ‘রাজা পিএন রায় বালিকা বিদ্যালয়’। ইংরেজি প্রমথনাথ নাম থেকে প্রমথ এর ‘পি’ এবং নাথ এর ‘এন’ নিয়ে স্কুলটির নামকরণ হয়।

রাজশাহী শহরের ঐতিহ্যবাহী এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি ১৯২৮ সালের আগে নিম্নমাধ্যমিক ছিল। ১৯২৮ সালে উচ্চ মাধ্যমিক হয়। তখন এর নাম হয়ে যায় ‘পিএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়’। ১৯৬০ সালে স্কুলটি সরকারিকরণ হলে নামের আগে ‘সরকারি’ শব্দটিও যুক্ত হয়। কিন্তু যিনি অর্থ দিয়ে স্কুলটি প্রতিষ্ঠা করিয়েছিলেন, তাঁর নামটিই ছিল একরকম আড়ালে।

সেই নামটি সামনে এল ১৫৪ বছর পর। সরকারি নির্দেশে স্কুলটিতে এখন নামের সংক্ষিপ্ত রূপ বদলে পূর্ণ নাম ব্যবহার করা হচ্ছে। ফলে স্কুলের নাম হয়েছে ‘সরকারি প্রমথনাথ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, রাজশাহী।’ এখন থেকে স্কুলের সাইনবোর্ড, প্যাড, সিলসহ অন্য প্রয়োজনীয় সবখানেই এ নাম ব্যবহার হবে। গত ৩ এপ্রিল স্কুলের মূল সাইনবোর্ডে এ নামের ব্যানার টাঙিয়ে দেওয়া হয়েছে। ‘পিএন’ শব্দের অর্থ যে প্রমথনাথ তা রাজশাহীর অনেকেই জানতেন না। এখন থেকে সবাই জানবে দিঘাপাতিয়ার এ রাজার নাম।

স্কুলটির প্রধান শিক্ষক তৌহিদ আরা জানালেন, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) মহাপরিচালক অধ্যাপক নেহাল আহমেদ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পূর্ণ নাম ব্যবহারের জন্য সম্প্রতি চিঠি দেন। এর শেষ সময় ছিল ৩ এপ্রিল। এই সময়ের মধ্যে তারা স্কুলের নামের পূর্ননাম ব্যবহার শুরু করেছেন। প্রধান ফটকের ছবি তুলে মাউশির ইমেইলেও পাঠাতে হয়েছে। তিনি জানান, রাজশাহীতে শুধু তাদের স্কুলেই এ রকম সংক্ষিপ্ত নাম ছিল। এ নামেই স্কুলটি পরিচিত। তবে নির্দেশনা অনুযায়ী তারা পূর্ণ নাম ব্যবহার শুরু করেছেন।