ঢাকা | ফেব্রুয়ারী ২৮, ২০২৪ - ১০:৫৪ অপরাহ্ন

ইফতারে এখনও বৃটিশ আমলের জিলাপি

  • আপডেট: Monday, April 4, 2022 - 9:17 pm

স্টাফ রিপোর্টার: ভেতরটা রসে টইটুম্বুর। আর বাইরের অংশটি মচমচে। স্বাদ যেন অমৃত! বৃটিশ আমল থেকেই এমন জিলাপি বিক্রি করে রাজশাহীর একটি দোকান। রোজায় ইফতারের জন্য দোকানটির জিলাপির চাহিদা বেড়ে যায়। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি।

দোকানটির নাম ‘শামীম সুইটস’। রাজশাহী মহানগরীর প্রাণকেন্দ্র সাহেববাজার বড় মসজিদের পাশের এই দোকানটিতে এখন দুপুরের পর থেকেই জিলাপি কিনতে হুমড়ি খেয়ে পড়ছে মানুষ। এখানে এক থেকে দেড় কেজি ওজনের একেকটি জিলাপি রোজাদারদের কাছে অন্যতম আকর্ষণ। পুরোটা না কিনলেও ভেঙ্গে ভেঙ্গে কিনে নিয়ে যান তারা।

সোমবার দুপুরে দোকানটিতে গিয়ে দেখা যায়, কারিগর মো. জয়নাল জিলাপি ভাজতে ব্যস্ত। জানালেন, প্রায় ১৫ বছর ধরে এখানে কাজ করছেন তিনি। আলাদা বৈশিষ্ট্য আছে বলে এখানকার জিলাপির চাহিদা বেশি। এক শ্রেণির ক্রেতাদের ইফতার হয় না এখানকার জিলাপি ছাড়া। বছরের পর বছর একই স্বাদের জিলাপি হয় এখানে।

দোকানের বয়স কত তা বলতে পারলেন না এখনকার মালিকদের অন্যতম আলমগীর কবীর। তবে বললেন, এটা বৃটিশ আমলের দোকান। কয়েকবার মালিকানা বদল হয়েছে। তাঁর দাদা আজগর শাহ শেষবার দোকানটি কিনেছিলেন প্রায় ৭০ বছর আগে। তখন তিনি তাঁর ছোট ছেলে শামীমের নামে দোকানের নামকরণ করেন। আজগর শাহের পর তার ছেলে মনসুর আলী, মনজুর আলী, আবদুস সেলিম, মো. মনির ও মো. শামীম দোকানটি চালিয়েছেন। এখন তাদের ছেলেরা চালাচ্ছেন।

আলমগীর জানালেন, অন্য দোকানের চেয়ে এখানে জিলাপির দাম কেজিতে ১০ টাকা বেশি। এখন তারা বিক্রি করছেন ১৬০ টাকা কেজিতে। বছরের অন্য সময় ৫০ থেকে ৬০ কেজি জিলাপি বিক্রি হয় প্রতিদিন। রমজানের প্রতিদিন বিক্রি হয় ৮০ থেকে ৯০ কেজি। আলাদা স্বাদ এবং বৈশিষ্ট্য আছে বলে এ জিলাপির কদর বেশি।