ঢাকা | ফেব্রুয়ারী ২৯, ২০২৪ - ৪:৫৩ পূর্বাহ্ন

দুই কৃষকের আত্মহত্যা: অপারেটরের নিয়োগ বাতিল, রিমান্ডের আবেদন

  • আপডেট: Sunday, April 3, 2022 - 9:53 pm

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার নিমঘুটু গ্রামের দুই সাঁওতাল কৃষকের আত্মহত্যার প্ররোচনা মামলায় গভীর নলকূপের অপারেটর সাখাওয়াত হোসেনকে (৩০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ঘটনার ১১ দিন পর শনিবার দিবাগত রাতে গোদাগাড়ীর কদমশহর গ্রাম থেকে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।

গোদাগাড়ীর দেওপাড়া ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ড কৃষক লীগের সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিএমডিএ) পরিচালিত ঈশ্বরীপুর-২ গভীর নলকূপের অপারেটর ছিলেন। গ্রেপ্তারের পর রোববার দুপুরে তাঁর নিয়োগ বাতিল করেছে বিএমডিএ।

বিএমডিএ’র রাজশাহী রিজিয়নের নির্বাহী প্রকৌশলী জিন্নুরাইন খান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, সাখাওয়াতের নিয়োগ স্থায়ীভাবেই বাতিল করা হয়েছে। ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ মোতাবেক তিনি সাখাওয়াতকে বরখাস্ত করেছেন বলেও জানান জিন্নুরাইন খান।

এদিকে গ্রেপ্তারের পর রোববার দুপুরে পুলিশ তাকে আদালতে হাজির করে তিন দিনের রিমান্ড চেয়েছে। গোদাগাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলাম জানান, আদালত আসামি সাখাওয়াতকে কারাগারে পাঠিয়েছেন। তিন দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হলেও শুনানি হয়নি। দু’একদিন পর শুনানি হতে পারে। রিমান্ড মঞ্জুর হলে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

গত ২৩ মার্চ নিমঘুটু গ্রামের সাঁওতাল কৃষক অভিনাথ মারান্ডি (৩৭) ও তার চাচাতো ভাই রবি মারান্ডি (২৭) বিষপান করেন। এতে অভিনাথ ২৩ মার্চ ও রবি ২৫ মার্চ মারা যান। পরিবারের দাবি, বিএমডিএ’র ঈশ্বরীপুর-২ গভীর নলকূপের অপারেটর সাখাওয়াত এ দুই কৃষককে বোরো ধানের জমিতে পানি দিচ্ছিলেন না। পানি না দিয়ে দুই কৃষককে বিষ খেতে বলেছিলেন অপারেটর সাখাওয়াত। তাই তারা দুজনে গভীর নলকূপের সামনেই বিষপান করেন। এ ঘটনার পর রাতে তাদের জমিতে রাতে পানি দিয়েছিলেন সাখাওয়াত।

২৪ মার্চ বাড়ি থেকে অভিনাথের মরদেহ উদ্ধারের সময় সাখাওয়াত পুলিশের সামনেই ছিলেন। তখন পরিবারের পক্ষ থেকে সাখাওয়াতের বিরুদ্ধে পানি না দিয়ে হয়রানির অভিযোগ করা হয়। তারপরেও পুলিশ সাদা কাগজে কৃষক অভিনাথের স্ত্রীর সই নিয়ে অপমৃত্যুর মামলা করে। পরের দিন অভিনাথের স্ত্রী রোজিনা হেমব্রম গোদাগাড়ী থানায় গিয়ে সাখাওয়াতকে একমাত্র আসামি করে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে মামলা করেন। পরে হাসপাতালে রবি মারা গেলে তার ভাই সুশীল মারান্ডি বাদী হয়ে আরেকটি মামলা করেন।

প্রথম মামলাটি হওয়ার পরই আত্মগোপন করেছিলেন সাখাওয়াত। তাকে গ্রেপ্তার এবং শাস্তির দাবি জানিয়ে শনিবার মানববন্ধন করে জাতীয় আদিবাসী পরিষদ ও জাতীয় কৃষক সমিতি রাজশাহীতে মানববন্ধন করেছে। এর আগেও একই দাবিতে একাধিক কর্মসূচি পালিত হয়েছে। এদিকে কৃষকদের মৃত্যু এবং সময় মতো পানি না পাওয়ার কারণ জানতে ৪ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি ইতিমধ্যে গোদাগাড়ীর নিমঘুটু ও ঈশ^রীপুর গ্রাম পরিদর্শন করে স্থানীয়দের বক্তব্য সংগ্রহ করেছে। ক্ষুদ্র জাতিসত্তার কৃষকেরা এই কমিটির কাছে অভিযোগ করেছেন, ধানের জমিতে পানি না দেওয়ার কারণেই দুই কৃষক আত্মহত্যা করেছেন।

মন্ত্রণালয়ের তদন্তের আগে বিএমডিএ তিন সদস্যের একটি কমিটি করে ঘটনা তদন্ত করেছিল। এই প্রতিবেদনে বলা হয়, পানি নিয়ে কোন সংকট ছিল না। তবে গ্রেপ্তারের পর অপারেটর সাখাওয়াতের নিয়োগ বাতিল করা হলো। সাখাওয়াতের অনুপস্থিতিতে ২৫ মার্চ থেকেই অন্য একজন ব্যক্তি গভীর নলকূপটি পরিচালনা করছেন। তাকে অস্থায়ীভাবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।