ঢাকা | ফেব্রুয়ারী ২১, ২০২৪ - ৪:৫৯ অপরাহ্ন

সেচের পানি না পেয়ে কৃষকের আত্মহত্যায় তদন্ত কমিটি

  • আপডেট: Tuesday, March 29, 2022 - 1:32 pm

অনলাইন ডেস্ক: রাজশাহীতে সেচের পানি না পেয়ে বিষপানে দুই ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী কৃষকের আত্মহত্যার ঘটনায় চার সদস্যের তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৯ মার্চ) কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

বিষয়টি খতিয়ে দেখতে চার সদস্যের তদন্ত কমিটিতে কৃষি মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মো. জুবাইর হোসেন বাবলুকে আহ্বায়ক করা হয়েছে। কমিটির বাকি সদস্যরা হলেন- রাজশাহীর জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল, বিএডিসির (নাটোর) নির্বাহী প্রকৌশলী (ক্ষুদ্রসেচ) সাজ্জাদ হোসেন এবং বিএমডিএর (নওগাঁ) নির্বাহী প্রকৌশলী সমশের আলী।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, গত ২৪ মার্চ একটি অনলাইন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদে ‘জমিতে পানি দেয়নি পাম্প অপারেটর, ক্ষোভে কৃষকের আত্মহত্যা’ এবং ২৭ মার্চ ‘দৈনিক ইত্তেফাক’ পত্রিকায় ‘সেচের পানি না পেয়ে বিষপান: আরেক কৃষকের মৃত্যু’ শীর্ষক সংবাদ প্রকাশিত হয়। সংবাদ দুটিতে প্রকাশিত কৃষক দুজনের মৃত্যুর কারণ এবং সেচের পানি সময়মতো না পাওয়ার কারণ উদ্ঘাটন করে সরেজমিনে তদন্ত করে আগামী সাত কর্মদিবসের মধ্যে বিস্তারিত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য এ কমিটি গঠন করা হলো।

রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে ধানের জমিতে সেচের পানি না পেয়ে ক্ষোভে ও অভিমানে বিষ পান করে মারা যাওয়া ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর কৃষক অভিনাথ মার্ডির (৩০) পর মারা গেলেন তার চাচাতো ভাই রবি মার্ডিও (২৭)। গত ২৪ মার্চ রাত ৮টার দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রবি মার্ডি মারা যান।

স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার ঈশ্বরীপুর মাঠে ধানের জমিতে সেচ দেয়ার জন্য বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিএমডিএ) ডিপ অপারেটর শাখাওয়াতের কাছে ১২ দিন ধরে ঘুরেও সেচের পানি পাননি অভিনাথ। এদিকে, পানি শুকিয়ে ধানী জমি বিবর্ণ হতে থাকে। সবশেষ বুধবার আবারো ডিপ অপারেটরের কাছে সেচের পানির জন্য যান অভিনাথ ও রবি। কিন্তু সিরিয়াল না পেয়ে তারা এক সঙ্গে বিষপান করেন।

এ ঘটনায় ২৫ মার্চ সন্ধ্যা ৭টার দিকে সেচ নলকূপের অপারেটর সাখাওয়াত হোসেনকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেছে নিহত কৃষক অভিনাথ মার্ডির স্ত্রী রোজিনা হেমরম। আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগ এনে এ মামলা করা হয়।

অভিযুক্ত সাখাওয়াত হোসেনকে আটক করতে পুলিশের অভিযান চলছে বলে জানিয়েছেন গোদাগাড়ী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলাম

মামলা করার সময় রোজিনা হেমরমের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী-২ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা, রাজশাহী জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম তোতা, জাতীয় আদিবাসী পরিষদ রাজশাহী জেলা সভাপতি বিমল চন্দ্র রাজোয়াড় ও তার পরিবারের সদস্যরা।

সোনালী/জেআর