ঢাকা | ফেব্রুয়ারী ২৮, ২০২৪ - ৯:৫৮ অপরাহ্ন

মারিউপোল: রাশিয়ার বড় পরিকল্পনায় আটকা ছোটো শহর

  • আপডেট: Wednesday, March 23, 2022 - 12:50 pm

অনলাইন ডেস্ক: ইউক্রেনের মারিউপোল শহরে হামলা বাড়িয়েছে রাশিয়া। শহরটি রুশ বাহিনীর হাতে ছেড়ে দিতে কর্তৃপক্ষকে বলেছিল তারা। তবে ইউক্রেন অস্বীকৃতি জানালে সেখানে হামলা জোরদার করে রুশ বাহিনী।

এ প্রেক্ষাপটে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেন, রুশ গোলা ও বোমা হামলার মধ্যে মারিউপোলে এক লাখের বেশি মানুষ আটকা পড়ে আছেন।

ইউক্রেনের এ বন্দরনগরীটিতে আটকে পড়া লোকজন খাদ্য, পানি ও ওষুদের চরম সংকটে রয়েছেন। ইউক্রেন সরকারের অভিযোগ, শহর থেকে বেসামরিক লোকজনকে বের হতে দিচ্ছে না রুশ বাহিনী।

ছোট্ট এ শহরটি নিয়ে রাশিয়ার পরিকল্পনা তাহলে কী? শহরটির দখল নিতে আসলে কী করতে চাচ্ছে রুশ বাহিনী?

রুশ বাহিনী যেভাবেই হোক মারিউপোলের দখল নিতে চায়। হামলা জোরদার করায় তারা কি বেসামরিক লোকজনের প্রাণহানির বিষয়টি উপেক্ষা করছে?

জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস বলেছেন, ইউক্রেনের মানুষ এখন নরক যন্ত্রণায় বাস করছেন। কারণ, দেশটির বহু শহরে অব্যহতভাবে গোলাবর্ষণ চালিয়ে যাচ্ছে রুশ বাহিনী।

এ যুদ্ধ জয়যোগ্য নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, সহসাই এ যুদ্ধ শেষ হচ্ছে না। অন্যদিকে যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেছেন, রুশ বাহিনী এক জায়গাতেই আটকে আছে।

দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর মারিউপোলে লড়াই প্রসঙ্গে জেলেনস্কি বলেন, রুশ হামলার পর মারিউপোলে কার্যত আর কিছুই অবশিষ্ট নেই।

গত বুধবার ধ্বংস হওয়া একটি থিয়েটারের মধ্যে এখনো বহু বেসামরিক নাগরিক আটকা পড়ে আছেন বলে মনে করা হচ্ছে।

কৃষি শহর ভজনেসেনস্ক এবং এর একটি সেতুকে ঘিরে দুই দিন ধরে ব্যাপক লড়াই হয়েছে।

এখানে জয়ের মাধ্যমেই রুশ বাহিনী দ্রুত কৃষ্ণসাগরের বড় বন্দর ওডেসা এবং একটি পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের দিকে অগ্রসর হতে পারবে।

তবে ইউক্রেনের সেনারা তীব্র প্রতিরোধ তৈরি করেছে এবং তারা একটি সেতু উড়িয়ে দেয়ায় রুশ বাহিনীকে পিছু হটতে হয়েছে প্রায় ১০০ কিলোমিটার পর্যন্ত।

তবে ওই লড়াইয়ের তিন সপ্তাহ পর ভজনেসেনস্কের মেয়র আবারও রুশ হামলা হতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছেন। কারণ, শহরটির যোদ্ধাদের হাতে পর্যাপ্ত অস্ত্র নেই।

তিনি বলেন, শত্রুদের প্রতিরোধ করার মতো ভারী অস্ত্র তাদের হাতে আর নেই।

সোনালী/জেআর