ঢাকা | জুলাই ১৩, ২০২৪ - ৫:২৩ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম

‘৩ বছর ধরে আত্মহত্যার চিন্তা’, ভবনের ছাদ থেকে লাফ দিল কিশোরী

  • আপডেট: Monday, March 14, 2022 - 12:42 pm

অনলাইন ডেস্ক: ময়মনসিংহে ‘অবাধ স্বাধীনতা ও চলাফেরায় পরিবারের লোকজন হস্তক্ষেপ’ করায় এক স্কুলছাত্রী আত্মহত্যা করেছেন। একটি ১২তলা ভবনের ছাদ থেকে লাফ দিয়ে ছাত্রীটি আত্মহত্যা করে। এর আগে নিজের ফেসবুকে একটি দীর্ঘ স্ট্যাটাস দেয়। ৩ বছর ধরে আত্মহত্যার চিন্তা করছিল কিশোরীটি। পুলিশ মরদেহ সড়ক থেকে উদ্ধার করে হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, নগরীর স্বদেশী বাজার মোড়ে দুপুর ২টার দিকে একটি শব্দ হয়। লোকজন এগিয়ে গিয়ে দেখেন এক কিশোরী পড়ে আছে। ওপর থেকে পড়লেও কিশোরীর রক্তক্ষরণ হচ্ছিল না। প্যান্ট-শার্ট পরা তরুণী পাশের বহুতল ভবনের ছাদ থেকে তরুণী আত্মহত্যা করেছে বলে ধারণা স্থানীয়দের।

তাৎক্ষণিকভাবে তরুণীর পরিচয় না মিললেও ঘণ্টাখানেট পর মেয়ের লাশ শনাক্ত করেন বাবা স্বপন ধর। তিনি নগরীর কমার্স কলেজের বাংলা বিভাগের শিক্ষক ও গবেষক। নিহত তরুণীর নাম অর্কপ্রিয়া ধর সৃজা (১৬)। সে নগরীর বিদ্যাময়ী বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী ছিলো। তাদের বাসা নগরীর পুলিশ লাইনস এলাকায়।

ভবনের ষষ্ঠতলায় খালা সুবর্না দে’র বাসায় যাওয়া-আসা ছিলো তার। রোববার দুপুরে খালার বাসায় না গিয়ে ছাদ থেকে পড়ে আত্মহত্যা করেছে সৃজা এমনটি ধারণা স্বজনদের। আত্মহত্যার আগে সামাজিক যোগযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেয় সে।

‘নিজের স্বাধীনতায় বাবা-মা ও ভাইয়ে হস্তক্ষেপ মেনে নিতে পারছিল না সৃজা। সে কারণে তিন বছর ধরেই আত্মহত্যা নিয়ে ভাবছিল সৃজা। অনেক চেষ্টা করেও নিজের কষ্ট ভুলতে পারছিল না। সমাজ ব্যবস্থা ও পরিবারের ওপর চরম ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ’ ঘটে তার স্ট্যাটাসে।

রাস্তার মাঝে মেয়ের লাশ পড়ে থাকতে দেখে আহাজারি করেন শিক্ষক বাবা স্বপন ধর। নিজের মেয়ের এমন মৃত্যু কোনোভাবেই মানতে পারছিলেন না তিনি। ঘটনার অন্তত দেড় ঘণ্টা আগেও তার মেয়ে ঘরের দরজা খুলে দেয়। এরপর প্রাইভেটের জন্য বেরিয়েছিল।

কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ শাহ কামাল আকন্দ বলেন, ‘পরিবারের শাসন-বারণ মেনে নিতে পারছিল না মেয়েটি। তাই আত্মহত্যা করতে পারে। ফেসবুকের স্ট্যাটাস দেখে তাই বোঝা যাচ্ছে। মৃত্যুর সঠিক কারণ নিশ্চিত হতে লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

সোনালী/জেআর