ঢাকা | ফেব্রুয়ারী ২১, ২০২৪ - ৩:১২ অপরাহ্ন

মাধ্যমিকে নতুন কারিকুলাম বাস্তবায়নে নজরদারির তাগিদ শিক্ষামন্ত্রীর

  • আপডেট: Saturday, March 12, 2022 - 8:04 pm

 

অনলাইন ডেস্ক: মাধ্যমিক শিক্ষায় নতুন কারিকুলাম বাস্তবায়নে নজরদারির তাগিদ দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেছেন, সঠিক পন্থায় পাঠদান হচ্ছে কি না তা নিয়মিত নজরদারি করতে মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের।

আজ শনিবার জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) আয়োজিত এক ওরিয়েন্টেশনের সমাপনী অনুষ্ঠানে এই তাগিদ দেন মন্ত্রী। নতুন কারিকুলামের বিষয়ে উপজেলা ও জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের ধারণা দিতে এটি আয়োজন করা হয়।

যেসব উপজেলায় ষষ্ঠ শ্রেণিতে নতুন কারিকুলামের পাইলটিং শুরু হয়েছে সেখানকার মাঠ কর্মকর্তাদের নিয়ে চারটি সেশনে কর্মশালা করা হয়েছে।

কারিকুলাম তৈরির চেয়ে বাস্তবায়ন অনেক কঠিন- এ কথা উল্লেখ করে ডা. দীপু মনি জেলা ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনাদের মাধ্যমে সেটি নিয়মিত মনিটরিং করতে হবে। নির্দেশনামতো পাঠদান হচ্ছে কি না, কোথায় কী ঘটছে, তার নিয়মিত তথ্য আমাদের জানাতে হবে।’

জেলা ও উপজেলা কর্মকর্তাদের অংশগ্রহণে সকাল ৯টায় শুরু হয় এনটিসিবির ওরিয়েন্টেশন। চারটি সেশনে নতুন কারিকুলামের বিভিন্ন বিষয়ে ধারণা দেওয়া হয়। নতুন সিলেবাস আর পুরনো সিলেবাসে পার্থক্য, আগের ও নতুন শিক্ষাক্রমে পরিবর্তন, হাতে কলমে শেখার কৌশল, শিক্ষার্থীদের গাইডনির্ভর না হওয়াসহ সচেতনতা বৃদ্ধির ওপর আলোচনা করা হয় কর্মশালায়।

অংশগ্রহণকারী কর্মকর্তারা জানান, শিক্ষকরা কীভাবে নির্দেশিকা বাস্তবায়ন করবেন, এই কার্যক্রম কীভাবে মনিটরিং করবেন- সেসব ধারণাও দেওয়া হয় কর্মশালায়।

নতুন কারিকুলাম বাস্তবায়নের মাধ্যমে আধুনিক ও যুগোপযোগী শিক্ষা শুরু হবে বলে জানান মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) মহাপরিচালক অধ্যাপক নেহাল আহমেদ। বলেন, ‘সেটা নিবিড় পর্যাবেক্ষণ করতে হবে। ২০২৩ সাল থেকে ষষ্ঠ শ্রেণিতে পাইলটিং বাস্তবায়ন করা হবে।’ যার যা দায়িত্ব তা পালন করার জন্য কর্মকর্তাদের তাগিদ দেন মাউশি মহাপরিচালক।

এর আগে নতুন কারিকুলাম সম্পর্কে শিক্ষামন্ত্রী বলেছিলেন, ‘নতুন শিক্ষাক্রমের শিক্ষার্থীদের শুধু জ্ঞান অর্জন নয়, জ্ঞান অর্জনের সঙ্গে সঙ্গে দক্ষতা, সঠিক দৃষ্টিভঙ্গি, মূল্যবোধ শিখতে পারবে। সব কিছুর সমন্বয় ঘটিয়ে শিক্ষার্থীরা দক্ষ মানুষ হবে, নিজেরা চিন্তা করতে শিখবে, চিন্তার জগত প্রসারিত হবে। শিক্ষার্থীরা যা শিখবে তা প্রয়োগ করা শিখবে, সমস্যা চিহ্নিত করতে পারবে, তার সমাধান খুঁজে বের করতে পারবে। আমরা শিক্ষার্থীদের সেভাবে গড়ে তুলতে চাই।’

২০২১ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী পরিমার্জিত কারিকুলামের প্রস্তাবিত খসড়া অনুমোদন করেন। নতুন কারিকুলামে মাধ্যমিক শিক্ষা স্তরে কোনো বিভাগ থাকছে না। এত দিন শিক্ষার্থীরা বিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা ও মানবিক বিভাগের মধ্যে কোনো একটি পছন্দ করত। নতুন কারিকুলামে শিক্ষার্থীরা নবম-দশম শ্রেণিতে সব বিষয়ে পড়বে। এটি বাস্তবায়ন শুরু হবে ২০২৩ সালে।

নতুন কারিকুলামে একজন শিক্ষার্থী মাধ্যমিক স্তরে সব বিষয়ের সঙ্গে পরিচিত ও জ্ঞান লাভ করবে। অর্থাৎ সব ধরনের শিক্ষা বা অভিন্ন শিক্ষা নিয়েই শিক্ষার্থীদের মাধ্যমিক শিক্ষার স্তর শেষ করতে হবে। নতুন কারিকুলামে বিদ্যালয়ে শুক্র ‍ও শনিবার দুই দিন সাপ্তাহিক ছুটি থাকবে।