ঢাকা | ফেব্রুয়ারী ২৮, ২০২৪ - ৮:৫৩ অপরাহ্ন

মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি দশম শ্রেণির ছাত্র

  • আপডেট: Tuesday, March 8, 2022 - 2:25 pm

অনলাইন ডেস্ক: সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার একটি মাদ্রাসার পরিচালনা কমিটির সভাপতি হয়েছেন দশম শ্রেণির ছাত্র মো. আলামিন কাওসার। বিষয়টি এলাকায় আলোচনার জন্ম দিয়েছে। ঐ কমিটি বাতিল চেয়ে বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেছেন আব্দুল কুদ্দুস নামের স্থানীয় এক ব্যক্তি।

আলামিন কাওসারকে উপজেলার তালম ইউনিয়নের রোকনপুর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার সভাপতি করে একটি অ্যাডহক কমিটি গঠন করা হয়েছে। আলামিন কাওসার তালম ইউনিয়নের বড়ই চড়া গ্রামের মৃত মোকছেদ আলীর ছেলে। তার বর্তমান বয়স ২৭ বছর। তিনি বগুড়া জেলার সুলতানগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির উন্মুক্ত শাখার ছাত্র এবং ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক।

লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, চার মাস আগে রোকনপুর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির মেয়াদ শেষ হয়। কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার পর অ্যাডহক কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া শুরু করেন মাদ্রাসা সুপার মো. আব্দুল জলিল। এলাকায় অনেক শিক্ষিত ও যোগ্য ব্যক্তি থাকার পরও মাদ্রাসা সুপার স্বেচ্ছাচারিতা করে অনিয়মের মাধ্যমে স্কুলছাত্র আলামিন কাওসারকে সভাপতি করে পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট অ্যাডহক কমিটি গঠন করেন।

বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকার জনসাধারণের মধ্যে মিশ্র-প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। এ ঘটনায় আলামিন কাওসারকে অ্যাডহক কমিটি থেকে বাদ দিয়ে যোগ্য ও শিক্ষিত লোককে সভাপতি করার দাবি জানিয়ে সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেন আবদুল কুদ্দুস নামের স্থানীয় এক ব্যক্তি।

এ বিষয়ে বিতর্কিত ঐ সভাপতি আলামিন কাওসার বলেন, আমি বগুড়া জেলার সুলতাগঞ্জ উচ্চবিদ্যালয়ের নবম শ্রেণি পাস করে এখন দশম শ্রেণিতে অধ্যায়নরত আছি। অধ্যায়নের পাশাপাশি আমি রোকনপুর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার অ্যাডহক কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রোকনপুর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা সুপার মো. আবদুল জলিল বলেন, বিধি অনুসরণ করেই অ্যাডহক কমিটি গঠন করা হয়েছে।

তাড়াশ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. ফকির জাকির বলেন, বিষয়টি আমি অবগত হয়েছি। তদন্তপূর্বক বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

সোনালী/জেআর