ঢাকা | ফেব্রুয়ারী ২৯, ২০২৪ - ১১:৪৪ পূর্বাহ্ন

টি-টোয়েন্টিতেও জয়ে শুরু টাইগারদের

  • আপডেট: Thursday, March 3, 2022 - 9:19 pm

 

অনলাইন ডেস্ক: মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে একাই আফগানিস্তানের চার উইকেট তুলে নিয়েছেন টাইগার স্পিনার নাসুম আহমেদ। সেই সুবাদে ওয়ানডের মতো টি-টোয়েন্টিতেও জয়ে সিরিজ শুরু করল স্বাগতিক বাংলাদেশ। দীর্ঘ আট ম্যাচের পর টি-টোয়েন্টিতে জয় পেল টাইগাররা। ফলে ৬৩ রানের জয় নিয়ে সিরিজে ১-০ এগিয়ে গেল মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বাহিনী।

বাংলাদেশের দেয়া ১৫৬ রানের জবাবে ব্যাট করতে নামা আফগানিস্তানের ওপেনার রহমানুল্লাহ গুরবাজকে ইনিংসের প্রথম ওভারেই সাজঘরে পাঠান বাংলাদেশি স্পিনার নাসুম আহমেদ। নিজের করা দ্বিতীয় ওভারে আরও দুই আফগান ব্যাটার হজরতউল্লাহ জাজাই এবং কে সাজঘরে ফেরান তিনি।

আফগানিস্তানের পরের দুই উইকেট নিজের করে নেন টাইগার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। পঞ্চম উইকেটে দলের হাল ধরার চেষ্টা করা আফগান অধিনায়ক মোহাম্মদ নবিকে সাজঘরে ফেরান ১৬ রানে। আর ম্যাচে আফগানিস্তানের সবচেয়ে সফল ব্যাটার নাজিবুল্লাহ জাদরানকেও আউট করেন সাকিব। আউট হওয়ার করেন জাদরান করেন ২৬ রান।

চাপে পড়া আফগানিস্তানকে উঠে দাঁড়াতেই দেননি শরিফুল-মোস্তাফিজরা। রশিদ খান আউট হন ১ রানে। এছাড়া ২০ রানে আজমতউল্লাহ ওমরজাই, ৮ রানে কায়েস আহমেদ এবং ৪ রানে আউট হন মুজিব উর রহমান। আর ফজলহক ফারুকি অপরাজিত থাকেন শূন্যরানেই।

এর আগে ম্যাচের শুরুতে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ব্যাট হাতে শুরুটা ভালো হয়নি বাংলাদেশের। শুরুতেই ফেরেন ওপেনার নাঈম শেখ। আউট হওয়ার আগে করেছেন মাত্র ২ রান। এর কিছুক্ষণ পরেই এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়েন অভিষিক্ত ওপেনার মুনিম শাহরিয়াম। করেছেন ১৭ রান।

তৃতীয় উইকেটের খেলতে নামেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। কিন্তু ব্যাট হাতে সুবিধা করতে পারেননি তিনিও। কায়েস আহমেদের বলে আউট হওয়ার আগে করেছেন ৫ রান।

এরপর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এবং আফিফ হোসনকে সঙ্গে নিয়ে দলীয় স্কোর বাড়াতে থাকেন লিটন কুমার দাস। ব্যক্তিগত ১০ রানে আউট হন রিয়াদ। এদিকে আপনতালে খেলতে থাকা লিটন দাস ব্যক্তিগত অর্ধশতক পূর্ণ করেন। আউট হওয়ার আগে করেন ৬০ রান। ৪০ বলে খেলা এই ইনিংসটি ৪টি চার এবং ২টি ছয়ে সাজানো।

লিটন আউট হওয়ার কিছুক্ষণ পরেই সাজঘরে ফেরেন আফিফ হোসেন। তার সংগ্রহ ২৫ রান। এছাড়া ৮ রানে অভিষিক্ত রাব্বি এবং ৫ রানে শেখ মেহেদি হাসান আউট হন। এদিকে ৩ রানে নাসুম এবং ২ রানে শরিফুল অপরাজিত থাকেন।

মাত্র ১০ রানে ৪ উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা নির্বাচিত হন টাইগার স্পিনার নাসুম আহমেদ।