স্টাফ রিপোর্টার: পদ্মা নদীর ভাঙন থেকে রাজশাহী শহরকে রক্ষায় নগরীর টি-বাঁধকে স্থায়ী রূপ দেয়ার দাবি জানিয়েছে রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদ। গতকাল রোববার সকালে রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদ ও বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) রাজশাহী জেলা নেতৃবৃন্দ টি-বাঁধ পরিদর্শনে গিয়ে এ দাবি জানান।
রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি মো. লিয়াকত আলী বলেন, পদ্মায় পানি বাড়লেই টি-বাঁধের পাশে বালুর বস্তা ফেলতে হয়। এতে প্রতিবছর প্রচুর অর্থ ব্যয় হয়। কিন্তু ভাঙনের ঝুঁকি থেকেই যায়। তাই আমরা আই-বাঁধের মতো টি-বাঁধকেও স্থায়ীভাবে নির্মাণের দাবি জানাচ্ছি।
এদিকে রাজশাহীর পদ্মা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নি¤œাঞ্চলে বন্যার্ত মানুষ চরম দুর্বিসহ জীবন যাপন করছে। এ অবস্থায় তাদের পর্যাপ্ত ত্রাণসামগ্রি বিতরনের জন্য প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদ ও বাপার নেতৃবৃন্দ। গতকাল তারা টি-বাঁধ ছাড়াও রাজশাহী নগরীর পদ্মা তীরবর্তি বাজেকাজলা, পঞ্চবটি, কালুর মোড়, শ্রীরামপুর, বুলনপুর, কোর্ট ঢালান, নবগঙ্গা ও বেড়পাড়া এলাকা পরিদর্শন করেন।
এসব এলাকার পদ্মানদী সংলগ্ন বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শণ করে অসহায় মানুষের জীবন-যাপনের চিত্র তুলে ধরেন নেতৃবৃন্দ বলেন, পদ্মা নদীর পানি বৃদ্ধির কারণে তীরবর্তি কয়েকশ মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এখনো অনেক মানুষ পানিবন্দী হয়ে রয়েছেন। তাদের মধ্যে সরকারিভাবে ত্রান সামগ্রী বিতরণ করা হলেও তা অপ্রতুল বলে উল্লেখ করেন। তাই বন্যার্তদের পাশের দাড়ানোর জন্য নেতৃবৃন্দ সরকারি প্রশাসন ও সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহŸান জানিয়েছেন।
নদীতীর পরিদর্শনকালে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি মো. লিয়াকত আলী, সাধারণ সম্পাদক জামাত খান, সহসভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ডা. আবদুল মান্নান, হারুনার রশিদ, সাংগাঠনিক সম্পাদক দেবাশিষ প্রমাণিক দেবু, বিএফইউজে সহসভাপতি মামুন-অর-রশিদ, বাপা জেলা শাখার সহসভাপতি ও নারী নেত্রী সেলিনা বেগম, রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সদস্য রাশেদা বেগম, যুবনেতা কেএম জোবায়েদ হোসেন জিতু, সমাজসেবক আসুদুল্লাহ জাহাঙ্গীর, বাবলুর রহমান, মো. সেলিম, শফিকুল ইসলাম সুমন ও মো. সাদ্দাম হোসেন প্রমুখ।