এফএনএস: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) উন্নয়ন প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগে উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের পদত্যাগ দাবিতে দ্বিতীয় দিনের মতো ধর্মঘট পালন করেছেন আন্দোলনকারীরা। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ও পুরনো প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস’ান নিয়ে ধর্মঘট শুর্ব করেন ‘দুর্নীতির বির্বদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারে আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।
ধর্মঘট চলবে বিকেল চারটা পর্যন্ত। এছাড়া, ক্লাস-পরীক্ষা নেওয়া থেকেও বিরত রয়েছেন আন্দোলনরত শিক্ষকেরা। এদিন উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক মো. নুর্বল আলম ও রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) রহিমা কানিজসহ সব কর্মকর্তারা রেজিস্ট্রার ভবনে প্রবেশের চেষ্টা করলে তাতে বাধা দেন আন্দোলনকারীরা।
এদিকে, উপাচার্যকে অপসারণের যৌক্তিকতা তুলে ধরে গতকাল বৃহস্পতিবার আচার্য (রাষ্টপতি) বরাবর চিঠি দেবেন বলে জানিয়েছেন আন্দোলনকারীদের মুখপাত্র অধ্যাপক রাইয়ান রাইন। তিনি বলেন, আমরা আন্দোলনের শুর্বতে উপাচার্যের পদত্যাগ চাইনি। শুধু চেয়েছিলাম মহাপরিকল্পনাকে আবার সাজানো।
কিন’, সংবাদমাধ্যমে সবাই যখন জেনেছে, তিনি ও তার পরিবার এই অর্থ নিয়ে দুর্নীতি করেছেন, এরপরেই আমরা তার পদত্যাগ চেয়েছি। কারণ, একজন দুর্নীতিবাজ মানুষ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য থাকতে পারেন না।
আমরা তাকে অপসারণের যৌক্তিকতা তুলে ধরে আচার্যকে চিঠি দেবো এবং আমরা মিটিং করে আমাদের পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করবো। ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলাম অনিক বলেন, একজন দুর্নীতিবাজ কখনোই উপাচার্য পদে থাকতে পারেন না।
আমরা আল্টিমেটাম দিয়েছি, কিন’ তিনি সেটা মানেননি। তাই, উপাচার্য পদত্যাগ না করা পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবেই।