চাঁপাইনবাবগঞ্জ ব্যুরো: চাঁপাইনবাবগঞ্জে পদ্মা ও মহানন্দা নদীর পানি বিপদসীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হলেও আরও নতুন ৫টি ইউনিয়নের নি¤œাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় ৫২ মি.মি. বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে। এসব এলাকায় ৬ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।
পানি উন্নয়ন বোর্ড চাঁপাইনবাবগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী সৈয়দ সাহিদুল আলম জানান, পদ্মায় গত ২৪ ঘণ্টায় ১০ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার শূন্য দশমিক ৫৬ সেন্টিমিটার (বিপদসীমা ২২.৫০ সেমি) ও মহানন্দায় গত ২৪ ঘণ্টায় ১২ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার শূন্য দশমিক ৫৮ সেন্টিমিটার (বিপদসীমা ২১ সেমি) নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তিনি আরও জানান, পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় বন্যার আশঙ্কা রয়েছে।
জেলার সদর উপজেলার আলাতুলি, নারায়ণপুর, চরঅনুপনগর, শাহজাহানপুর ও চরবাগডাঙা ইউনিয়নের নি¤œাঞ্চলে পানি প্রবেশ করেছে। এ ৫ ইউনিয়নের ২ হাজার ২ শ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। শিবগঞ্জ উপজেলার পাঁকা, দুর্লভপুর, মনাকষা, উজিরপুর, ধাইনগর, ঘোড়াপাখিয়া ও ছত্রাজিতপুর ইউনিয়নের নি¤œাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।
চরবাগডাঙা ইউপি’র ৯ ওয়ার্ড সদস্য কামরুজ্জামান টুটুল জানান, এ ইউনিয়নের গোঠাপাড়া, বাগানপাড়া, চাকপাড়া, গিধনিপাড়া, মালবাগডাঙা গ্রামের নি¤œাঞ্চল প্লাবিত হয়ে প্রায় ৫ শ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। চরবাগডাঙা বিওপি এলাকার গিধনিপাড়ায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। শাহজাহানপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম জানান, হাকিমপুর, সেকালিপুর রাবনপাড়া, দুর্লভপুর ও নরেন্দ্রপুরের কিছু অংশ নি¤œাঞ্চল প্লাবিত হওয়ায় প্রায় ৪ শ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। পাশাপাশি বৃষ্টির কারণে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার রান্না করতে পারছে না। চর অনুপনগর ইউপি চেয়ারম্যান সাদেকুল ইসলাম জানান, নতুনপাড়া, বিশ^াসপাড়া, লম্বাপাড়া, মোন্নাপাড়া, চর অনুপনগর বাগানপাড়া, কলাবাগান ও চরকাশেমপুর ক্যানেলপাড়ার নি¤œাঞ্চল প্লাবিত হওয়ায় প্রায় ৪ শ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।
শিবগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আরিফুর রহমান জানান, পাঁকা, দুর্লভপুর, মনাকষা, উজিরপুর, ধাইনগর, ঘোড়াপাখিয়া ও ছত্রাজিতপুর ইউনিয়নের নি¤œাঞ্চল প্লাবিত হওয়ায় সাড়ে ৬ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। আরও ত্রাণের জন্য চাহিদাপত্র জেলা প্রশাসনের নিকট প্রেরণ করা হয়েছে।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর চাঁপাইনবাবগঞ্জের উপ-পরিচালক মঞ্জুরুল হুদা বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় ৫২ মি.মি. বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে। নি¤œাঞ্চল প্লাবিত হওয়ায় ৭ হাজার ৫ শ হেক্টর মাসকলাই তলিয়ে গেছে। এছাড়া ৫ শ ৮০ হেক্টর সব্জি ও ৭০ হেক্টর হলুদ নষ্ট হয়ে গেছে। এদিকে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আলমগীর হোসেন জানান, আলাতুলি ইউনিয়নে ইতমধ্যে ৫ শ পানিবন্দি পরিবারের মাঝে ৫ মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হয়েছে। নারায়ণপুর ইউনিয়নে ৪ শ ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে চাল বিতরণ করা হবে।
ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক এ কে এম তাজকির-উজ-জামান জানান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর ও শিবগঞ্জ উপজেলার পানিবন্দি ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের জন্য ত্রাণ ও দুর্যোগ মন্ত্রণালয়ে শুকনো খাবারের জন্য চাহিদাপত্র প্রেরণ করা হয়েছে।