স্টাফ রিপোর্টার: রাষ্ট্রীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত জাতীয় হকির সাবেক তারকা রবিউদ্দিন আহমেদ মিন্টুর ২০তম ও শামীম রেজার ১২তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হয়েছে।
এ উপলক্ষে বৈকালী সংঘের আয়োজনে মহানগরীর সিঅ্যান্ডবি মোড়ের মনিবাজারস’ বৈকালী সংঘ চত্বর থেকে শোকর‌্যালি শুর্ব হয়ে লক্ষ্মীপুর ও বহরমপুর বাইপাস মোড় (ঐতিহ্য চত্বর) ঘুরে একই স’ানে এসে শেষ হয়। পরে মিন্টু ও রেজার স্মরণে বৈকালী সংঘ চত্বরে আলোচনা সভা হয়।
আলোচনা সভা শেষে বৈকালী সংঘের কার্যালয় চত্বরে রাজশাহীর তর্বণ সংগঠন ইয়ুথ এ্যাকশন ফর সোস্যাল চেঞ্জ-ইয়্যাসের সহযোগিতায় বিনামূল্যে রক্তের গ্র্বপ নির্ণয় কর্মসূচি পালিত হয়। এসময় ইয়্যাসের প্রশিৰিত সদস্যরা বিনামূল্যে রক্তের গ্র্বপ নির্ণয়ের পাশাপাশি রক্তদানে সকলকে উদ্বুদ্ধ করে তুলতে রক্তদানের উপকারী দিকগুলো সকলের কাছে উপস’াপন করেন।
এসময় বৈকালী সংঘের সভাপতি এ.ওয়াই.এম মনির্বজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক রইস উদ্দিন আহম্মেদ, যুগ্ম সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, সহ ক্রীড়া সম্পাদক নুর্বজ্জামান নুর্ব, জাতীয় হকি দলের সাবেক খেলোয়ার আশরাফুল ইসলাম শিশু, ক্রিকেট কোচ রবি, ইয়্যাসের পৰে সভাপতি শামীউল আলীম শাওন, সাধারণ সম্পাাদক নাজমুল ইসলাম আকাশ, কোষাধ্যৰ আতিকুর রহমান আতিক, সাংগঠনিক সম্পাদক সোলাইমান হোসেন রকি, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক আবু সালেহ জিম, পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক সুবাস কুমার সহ অন্য সদস্য উপসি’ত ছিলেন।
এদিকে, বিকেলে তাদের স্মরণে কাজিহাটা এক নম্বর জামে মসজিদে দোয়া মাহফিল হয়। রবি উদ্দিন আহমেদ মিন্টু এবং শামীম রেজাসহ বৈকালী সংঘের প্রয়াত সকল সদস্যদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়।
প্রসঙ্গত, বৈকালী সংঘ থেকে প্রথম জাতীয় দলে খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন রবি উদ্দিন আহমেদ মিন্টু। ১৯৯৯ সালে ঢাকায় শারীরিক শিক্ষা কলেজে খেলার সময় দুর্ঘটনায় তিনি মারা যান। তাঁর নামেই পরে ঢাকায় মওলানা ভাসানী হকি স্টেডিয়ামে প্রধান গেটের নামকরণ করা হয়েছে ‘রবি উদ্দিন গেট’। এছাড়া নগরীর লৰীপুর মোড়ে মিন্টু চত্বর নামকরণ করা হয়েছে। রবি উদ্দিনের হাত ধরে এই সংঘের খেলোয়াড় শামীম রেজা জাতীয় দলে জায়গা করে নিয়েছিলেন। ২০০৭ সালে মাত্র ২৯ বছর বয়সে তিনিও মারা যান।