স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী মহানগরীর কেশবপুর পুলিশ ফাঁড়িতে কর্মরত একজন সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) এক ব্যবসায়ীকে তুলে নিয়ে গিয়ে সাড়ে ৭ হাজার টাকা কেড়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। নাজমুল হক টিটু নামের ভুক্তভোগী ওই ব্যবসায়ী গতকাল শনিবার রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) কমিশনারের কাছে লিখিতভাবে এই অভিযোগ দিয়েছেন।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহীর কর্ণহার থানার দারুশা গ্রামে টিটুর বাড়ি। রাজশাহী নগরীর সিটি বাইপাস মোড়ে তিনি ঢালাই মিকচার মেশিনের ব্যবসা করেন। গত ৮ সেপ্টেম্বর দুপুরে কেশবপুর পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই কামরুজ্জামান টহল পুলিশের গাড়ি নিয়ে গিয়ে তার দোকানের সামনে গিয়ে দাঁড়ান। এরপর কথা আছে বলে টিটুকে ডাকেন। টিটু গেলেই তার হাতে হাতকড়া পরিয়ে দেয়া হয়।
এএসআই কামরুজ্জামান তাকে গাড়িতে করে নগরীর টুলটুলিপাড়া এলাকায় নিয়ে যান। সেখানে টিটুকে বলেন, তুই অবৈধ ব্যবসা করিস। তাই ২০ হাজার টাকা দিতে হবে। এরপর পুলিশের এই কর্মকর্তা টিটুর পকেট থেকে সাড়ে ৭ হাজার টাকা বের করে নিয়ে তাকে ছেড়ে দেন বলে অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে।
অভিযোগে আরও বলা হয়েছে, সাড়ে ৭ হাজার টাকা নেয়ার পরও আরও সাড়ে ১২ হাজার টাকা দেয়ার জন্য টিটুকে পরে যোগাযোগ করতে বলা হয়। টিটু যোগাযোগ না করলে ২০ সেপ্টেম্বর তিনি আবার টিটুর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে গিয়ে তাকে খোঁজেন। না পেয়ে তিনি দোকানের কর্মচারীদের বলে যান, টিটু যোগাযোগ না করলে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেয়া হবে। এ অবস্থায় আতঙ্কিত হয়ে টিটু আরএমপি কমিশনারের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত এএসআই কামরুজ্জামান বলেন, টিটু ক্রিকেটে জুয়া খেলে। তাই তাকে সতর্ক করা হয়েছে। টাকা কেড়ে নেয়ার অভিযোগ সত্য নয়। তারপরেও টিটু পুলিশ কমিশনারের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন বলে শুনেছি।