সোনালী ডেস্ক : দেশে ক্রমবর্ধমান ধনবৈষম্য, সর্বগ্রাসী দুর্নীতি, গ্রামাঞ্চল পর্যনত্ম মাদকের বিসত্মার, নারী ও শিশুদের প্রতি সহিংসতায় বিশেষ করে নারী ধর্ষণ, শিশু ধর্ষণ, হত্যা, সন্ত্রাস, গুম ও সামপ্রদায়িকতার ক্রমবর্ধমান বিসত্মারে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ এবং এসব রোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির পলিটব্যুরোর নেতৃবৃন্দ। গতকাল সোমবার পলিটব্যুরোর এক সভায় এই আহ্বান জানান তারা।
পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন এমপি’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় ১০ম কংগ্রেসের প্রস্তুতির বিষয়ে বিসত্মারিত রিপোর্ট প্রদান করেন পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এমপি। পার্টির পলিটব্যুরো সভার প্রসত্মাবে বলা হয়, দেশের চলমান উন্নয়নে সৃষ্ট সম্পদের বৃহদাংশ মুষ্টিমেয় ধনীর দখলে। এ জন্য ব্যাংকের টাকা লুট, বিদেশে অর্থ পাচার, সরকারি প্রকল্প ও ক্রয়ে অবিশ্বাস্য রকম মূল্য দেখিয়ে অর্থ আত্মসাত ও সর্বোপরি রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে ব্যাংক, বীমা ও লাভজনক প্রতিষ্ঠানসমূহের মালিকানা দখল করতেও তারা সামান্যতম দ্বিধা করছে না। এর ফলে সৃষ্ট ভয়াবহ ধনবৈষম্য সমাজের মধ্যে ক্রমবর্ধমান অস্থিরতা তৈরি করছে। যার ফলে এই উন্নয়ন টেকসই না হওয়ার সমূহ বিপদ দেখা দিয়েছে।
প্রসত্মাবে আরও উলেস্নখ করা হয়, দুর্নীতি এখন রাষ্ট্র, সমাজ, অর্থনীতি ও প্রশাসনের স্বাভাবিক নিয়মে পরিণত হয়েছে। রাষ্ট্র ক্ষমতার শীর্ষ থেকে নীচ পর্যনত্ম এর চরম বিসত্মৃতি ঘটেছে। প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতির বিরম্নদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করলেও তার চারপাশেই এটা ঘটে চলেছে। মাকদের বিষয় টেনে এনে এতে বলা হয়, মাদকের বিরম্নদ্ধে শূন্য সহিষ্ণুতা ঘোষণা ও কথিত বন্ধুকযুদ্ধে বহু সংখ্যক মাদক ব্যবসায়ীর নিহত হওয়ার পরও মাদক এখন শহর ছেড়ে গ্রামের প্রত্যনত্ম অঞ্চল পর্যনত্ম পৌঁছে গেছে। মাদকের প্রভাবে যুব সমাজ ধ্বংসের প্রানেত্ম উপনীত হয়েছে। মাদকাসক্তিসহ সামাজিক ক্ষেত্রে চরম অবক্ষয়, নারী ও শিশু ধর্ষণ হত্যাসহ, নারীর প্রতি সহিংসতা বেড়েই চলেছে। এর সাথে যুক্ত হয়েছে ধর্মবাদীদের ফতোয়া, তথাকথিত হিজাব, নেকাবসহ পর্দার ঘেরটোপ। পথে ঘাটে, কর্মস্থলে নারীরা শিকার হচ্ছে যৌন নিপীড়নের। পলিটব্যুরোর প্রসত্মাবে বলা হয়, সন্ত্রাস এখন কিশোরদের মধ্যে পর্যনত্ম বিসত্মৃত হয়েছে। গুম-অপহরণের ঘটনাও ঘটছে প্রতিনিয়ত। এর ফলে সমাজের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে নিরাপত্তাবোধের অভাব। বিসত্মৃত হচ্ছে সামপ্রদায়িক মনোভাব ও সহিংসতার ঘটনাও।
সভায় আগামী নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে অনুষ্ঠিতব্য পার্টির ১০ম কংগ্রেস সফল করতে পার্টির প্রতিটি ইউনিটকে সকল প্রকার প্রচেষ্টা গ্রহণের আহ্বান জানান দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন পলিটব্যুরোর সদস্য আনিসুর রহমান মলিস্নক, নুরম্নল হাসান, মাহমুদুল হাসান মানিক, অধ্যাপক ড. সুশানত্ম দাস, হাজেরা সুলতানা, কামরম্নল আহসান ও মুসত্মফা লুৎফুলস্নাহ এমপি ।