এফএনএস: মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, ১৯৭১ সালে ৯ মাসব্যাপী স্বাধীনতাযুদ্ধে সারাদেশে ৩০ লাখ গণশহিদের চিহ্নিত করতে সরকার কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। তিনি বলেন, ১৯৭১ সালে ৯ মাসব্যাপী স্বাধীনতা যুদ্ধে সারাদেশে ৩০ লাখ গণশহীদের চিহ্নিত করা এখনো সম্ভব হয়নি। এ লক্ষ্যে সরকার কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সংসদে সরকারি দলের সদস্য বেগম রত্মা আহমেদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।
আ ক ম মোজাম্মেল হক জানান, মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী সব বীর মুক্তিযোদ্ধার তথ্য সংগ্রহ করে ডাটাবেজ তৈরি করে মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে। এ তালিকার বাইরে যদি কোন মুক্তিযোদ্ধা থেকে থাকেন তা চিহ্নিত করার কাজ চলছে। এটি সম্পন্ন হলে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার তালিকা প্রকাশ সম্ভব হবে। তিনি জানান, বর্তমানে ৫ হাজার ৭৯৫ জন মুক্তিযোদ্ধার নাম-ঠিকানা সম্বলিত পূর্ণাঙ্গ তথ্য ওয়েবসাইটে রয়েছে। এর মধ্যে শহিদ বেসামরিক গেজেটভুক্ত ২ হাজার ৯২২ জন, স্বশস্ত্র বাহিনী শহিদ ১ হাজার ৬২৮, শহিদ বিজিবি ৮৩২ জন এবং শহিদ পুলিশ ৪১৩ জন। সরকারি দলের অপর সদস্য দিদারম্নল আলমের এক প্রশ্নের জবাবে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী বলেন, দেশে খেতাবপ্রাপ্ত নারী মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা দু’জন। তবে গেজেটভুক্ত নারী মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা ৩২২ জন।
সরকারি দলের সদস্য মাহফুজুর রহমানের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, শহিদ মুক্তিযোদ্ধা ও অন্যান্য বীর মুক্তিযোদ্ধার সমাধীস্থল সংরক্ষণ ও উন্নয়ন প্রকল্পে ৪৬১ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে। প্রথম পর্যায়ে ২০ হাজার সমাধীস্থল সংরক্ষণ ও উন্নয়ন করা হবে। এ ছাড়া ৪৪২ কোটি ৪০ লাখ টাকা ব্যয়ে সারাদেশে ২৮১টি বধ্যভূমি সংরক্ষণ ও উন্নয়ন করা হবে।