স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীর শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী কালাম মোলস্নার লাশ পাওয়া গেছে ভারতের গঙ্গা নদীতে। গত মঙ্গলবার সকালে ভারতের জলঙ্গী থানা এলাকার টুলটুলিপাড়া এলাকার গঙ্গা নদী থেকে ভাসমান অবস্থায় তার লাশ উদ্ধার করেন স্বজনরা। কালাম মোলস্না রাজশাহীর বাঘা উপজেলার মীরগঞ্জ হেলালপুর গ্রামের আকসেদ মোলস্নার ছেলে।
স্থানীয়রা জানান, কালাম মোলস্না অঢেল সম্পদের মালিক হয়েছিলেন চোরাচালানের সঙ্গে জড়িয়ে। তার নামে রাজশাহীর বাঘা, চারঘাট, পাবনার ঈশ্বরদী, নাটোরের লালপুর, সিরাজগঞ্জ ও ঢাকার টঙ্গি থানায় আছে ২০টির বেশি মামলা। পুলিশের তালিকায় রাজশাহীর শীর্ষ মাদক চোলাচালানি ছিলেন কালাম মোলস্না।
বাঘা থানা পুলিশের একটি সূত্র জানায়, গত বছরের মে মাসে চট্টগ্রাম থেকে রাজশাহী ফেরার পথে ১ লাখ ৮ হাজার ইয়াবাসহ রাজশাহীর মাদক ব্যবসায়ী আসলাম ও চারঘাটের মাসুদকে গ্রেপ্তারের পর ওই মাদকের মালিক হিসাবে কালাম মোলস্নাকে খুঁজতে থাকে পুলিশ। এরপর থেকেই তিনি ভারতে আত্মগোপনে চলে যান। দেশজুড়ে মাদকবিরোধী অভিযান শুরম্ন হলে তার দেখা মেলেনি। তবে ভারতে অবস্থান করে এদেশে যোগাযোগ রেখে মাদকের চোরাচালান চালিয়ে আসছিলেন।
গত শনিবার দুপুরে ভারতের জলঙ্গী এলাকার ঘরতলা বিএসএফ ক্যাম্পের পাশ দিয়ে কপুরা নদীপথে ওই দেশের এক স্থান থেকে আরেক স্থানে রওনা হন কালাম মোলস্না ও তার বন্ধু ভারতীয় নাগরিক চাঁন মিয়া। এ সময় ওই দেশের সীমানত্মরড়্গী বাহিনী বিএসএফ তাদের আটক করার চেষ্টা করলে কালাম মোলস্না ও চাঁন মিয়া নদীতে ঝাঁপ দেন। চাঁন সাঁতরে উপরে উঠে এলেও কালাম মোলস্নাকে গত দুইদিন থেকে খুঁজে পাওয়া যায়নি।
কালাম মোলস্নার ভাই রম্নসত্মম মোলস্না জানান, সোমবার রাতে ভারতের আত্মীয় মারফত খবর পেয়ে মঙ্গলবার ভোরে লাশ আনতে পাঠানো হয়। এরপর সকাল ৮টার সময় সেখান থেকে কালাম মোলস্নার লাশ নিয়ে বাড়ি ফেরেন তার চাচা নজরম্নল ইসলাম, নিকটাত্মীয় মুকুল হোসেন, আরশাদ আলী ও দুলাল হোসেন।
বাঘা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরম্নল ইসলাম জানান, আমরা কালাম মোলস্নার লাশ দেখে নিশ্চিত হতে পারিনি। এ কারণে রাজশাহী মেডিকেল কলেজের মর্গে লাশের ময়নাতদনত্ম করা হয়েছে। ডিএনএ টেস্টও করা হবে। এসব প্রতিবেদন পাওয়ার পরই লাশের ব্যাপারে নিশ্চিতভাবে বলা যাবে।