স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী জেলার চারঘাট উপজেলার চক-ঝিকড়া গ্রামের আওয়ামীলীগ কর্মী মিনারম্নলকে মারপিট করে চোখ নষ্ট করার অপরাধে ৩ আসামিকে সশ্রম কারা দ-ে দ-িত করা হয়েছে।
রাজশাহীর চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মেহেদী হাসান তালুকদার গতকাল বুধবার দুপুরে জনাকীর্ণ আদালতে এই রায় প্রদান করেণ। আসামী শাহিন (২৯) কে দ-বিধির ৩২৬ ধারার অপরাধে ৫ বছর সশ্রম কারাদন্ড তৎসহ ৫ হাজার টাকা জরিমানা অর্থ অনাদায়ে ১৫ দিন বিনাশ্রম কারাদ-ের নির্দেশ দেন। এছাড়াও এ মামলার অপর দুই আসামী ফারম্নক (২৮) ও মানিক (৪৫) কে দ-বিধির ৩২৩ ধারার অপরাধে ৬ মাস সশ্রম কারাদ- ৫’শ টাকা জরিমানা অর্থ অনাদায়ে ৭ দিন বিনাশ্রম কারাদ- প্রদান করা হয়েছে।
মামলার অভিযোগ ও আদালত সংশিস্নষ্ট সুত্রে জানা জানায় ২০১৩ সালের ২৯ অক্টোবর বেলা পৌনে বারটার সময় বিএনপি ও জামায়াত আহুত হরতাল কর্মসূচীর সময় এজাহার নামীয় ১৬ জন বিএনপি-জামায়াত কর্মীসহ অজ্ঞাতনামা বেশ কয়েকজন ব্যক্তি বামনদীঘি বাজারে আওয়ামীলীগকে উদ্দেশ করে অশস্নীল ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে। আওয়ামীলীগ কর্মী মিনারম্নল উক্ত বাজারে পৌঁছা মাত্রই আসামীরা চারদিক থেকে ঘিরে মিনারম্নলকে দেশীয় অস্ত্র দ্বারা মারপিট করে। আসামী শাহিন ধারালো রামদা দিয়ে মিনারম্নলের কপালে আঘাত করলে উক্ত আঘাতের ফলে পরবর্তী সময় মিনারম্নলের একটি চোখ নষ্ট হয়ে যায়। এসময় আসামিরা মিনারম্নলের চাচা মামলার বাদিকেও মারপিট করে। মিনারম্নলকে আশেপাশের লোকজন প্রথমে চারঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেস্নঙে ও পরবর্তীতে রাজশাহী মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা করান। ওই দিনই আসামী শাহিনসহ ১৬ জনের বিরম্নদ্ধে চারঘাট মডেল থানায় এজাহার দায়ের করা হয়। থানার মামলা নং- ২৫। পরবর্তীতে তদনত্ম শেষে ২০১৪ সালের ২৮ মে মামলাটিতে আসামী শাহিনসহ ১৬ জনের বিরম্নদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। মামলায় ডাক্তার ও তদনত্মকারী কর্মকর্তাসহ ১০ সাড়্গীর সাড়্গ্য শেষে আদালত এ রায় ঘোষণা করেন। রায় ঘোষণার সময় আসামীরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন। তাদেরকে সাজা ভোগের জন্য জেলা কারাগারে পাঠানো হয়। রাষ্ট্রপড়্গে মামলাটি পরিচালনা করেন অতিরিক্ত সরকারী কৌঁসুলী আহসান হাবিব (রঞ্জু) এবং আসামী পড়্গে মামলাটি পরিচালনা করেন অ্যাড. হযরত আলী।