এফএনএস বিদেশ : যুক্তরাজ্যের কর্ম ও পেনসন মন্ত্রী আম্বার রাড সরকার ও ক্ষমতাসীন রক্ষণশীল দল থেকে পদত্যাগ করেছেন। ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে যুক্তরাজ্যের বের হয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়াটি প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন যেভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে চাইছেন তার প্রতিবাদে শনিবার তিনি পদত্যাগ করেছেন, জানিয়েছে বার্তা সংস’া রয়টার্স।
চুক্তিসহ অথবা চুক্তি ছাড়াই ৩১ অক্টোবরের মধ্যে যুক্তরাজ্যকে ইইউ থেকে বের করে নিয়ে আসতে চান জনসন। কিন’ চুক্তি ছাড়া যুক্তরাজ্যের ইইউ থেকে বের হয়ে যাওয়া আটকানোর চেষ্টা করছে বিরোধী দলগুলো।গত সপ্তাহে পার্লামেন্টে বিরোধীদলের ‘নো-ডিল এক্সিট’ আটকানোর পরিকল্পনায় সমর্থন জানিয়েছিল রক্ষণশীল দলের একদল আইনপ্রণেতা।
এতে পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারানো জনসন ২১ আইনপ্রণেতাকে তার রক্ষণশীল দল থেকে বহিষ্কার করেন। বিদ্রোহী এই আইনপ্রণেতাদের দল থেকে বহিষ্কারের বিষয়টি মেনে নিতে পারেননি রাড। এ পদক্ষেপকে ‘শিষ্টাচার ও গণতন্ত্রের ওপর আঘাত’ বলে বর্ণনা করেছেন তিনি।নিজের টুইটার একাউন্টে রাড বলেছেন, “আমি মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেছি ও রক্ষণশীল দলের হুয়িপ পদ ছেড়ে দিয়েছি। ভালো, অনুগত মধ্যপনি’ রক্ষণশীলদের বহিষ্কার করার পর আমি আর থাকতে পারি না। ব্যাখ্যার জন্য আমি প্রধানমন্ত্রী ও আমার অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যানের সঙ্গে কথা বলেছি।”
তিন বছর আগে এক গণভোটে ইইউ ছাড়ার পক্ষে রায় দেয় যুক্তরাজ্যের নাগরিকরা। কিন’ তারপর থেকে বিষয়টি ঝুলে আছে।জনসনের কাছে পাঠানো পদত্যাগ পত্রে রাড বলেছেন, “চুক্তিসহ ব্রেক্সিট সরকারের মূল লক্ষ্য এটি আর আমি বিশ্বাস করি না।”সানডে টাইমস জানিয়েছে, মন্ত্রিসভার অন্তত ছয় জন সদস্য রাডের দৃষ্টিভঙ্গী শেয়ার করেছেন, এদের মধ্যে অন্তত একজন পদত্যাগ করার কথা বিবেচনা করছেন।রাডের পদত্যাগের কারণে আরও টালমাটাল পরিসি’তি পড়লেন জনসন। এর মাত্র কয়েকদিন আগে তার ভাই জোও মন্ত্রিসভার থেকে পদত্যাগ করেছেন।