এফএনএস: প্রাথমিক সত্মরের শিশু শিক্ষার্থীদের ওপর পরীক্ষার চাপ কমাতে ২০২১ সাল থেকে নতুন কারিকুলামে তৃতীয় শ্রেণি পর্যনত্ম গতাণুগতিক পরীক্ষা থাকবে না বলে জানিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। প্রথম ও দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষা এবং বার্ষিক পরীক্ষার বদলে সারাবছর ক্লাসে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা হবে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রণালয়ের সচিব আকরাম-আল-হোসেন।
জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ অনুযায়ী প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণিতে ধারাবাহিক মূল্যায়ন এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তৃতীয় শ্রেণি পর্যনত্ম পরীক্ষা না রাখার নির্দেশ দিয়েছিলেন। বাচ্চাদের ওপর পরীক্ষা চাপ কমানোর জন্য তৃতীয় শ্রেণি পর্যনত্ম পরীক্ষা না নেওয়ার নির্দেশনা ছিল। আনত্মর্জাতিক স্বাক্ষরতা দিবস উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ প্রসঙ্গে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হেসেন বলেন, এখনই পরীক্ষা না থাকার বিষয় নয়।
বিষয়টি স্পস্ট করেন মন্ত্রণালয়ের সচিব আকরাম-আল-হেসেন। তিনি বলেন, আমরা জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুসত্মক বোর্ডের (এনসিটিবি) সঙ্গে সভা করেছি। ২০২১ সালে নতুন কারিকুলামে কার্যক্রম শুরম্ন করবো। ২০২০ সালে সামেটিক পরীক্ষা তৃতীয় শ্রেণি পর্যনত্ম রাখবো না, ফরমেটিভ পরীক্ষা রাখবো অর্থাৎ রাউন্ড দ্য ইয়ার তারা পরীক্ষা দেবে। সেক্ষেত্রে ১০০টি স্কুলে ট্রাইআউট করবো।
এরপরে ২০২১ সালে নতুন কারিকুলামে পুরোপুরি বাসত্মবায়ন হবে। অর্থাৎ গতানুগতিক প্রথম ও দ্বিতীয় সাময়িক এবং বার্ষিক পরীক্ষা থাকবে না। তবে সারাবছরই ক্লাসে মূল্যায়ন করা হবে। সচিব বলেন, শুধু পড়াশোনা নয়, শিক্ষার্থীর আচার-আচরণ সবগুলো বিষয় মূল্যায়ন করে গ্রেড দেওয়া হবে। শিক্ষা নীতিতে প্রাথমিক শিক্ষা অষ্টম শ্রেণি পর্যনত্ম হবে- এ বিষয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, এটি প্রক্রিয়াধীন। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে ফাইল চালাচালি চলছে।