বগুড়া প্রতিনিধি: বগুড়ার শেরপুরে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে ৩ জন এবং একই স’ানে মহাসড়ক পারাপার হতে গিয়ে নারীসহ ৪ জন নিহত হয়েছেন। এসময় আহত হয়েছেন আরও ৩ জন।
বৃহস্পতিবার ভোর রাতে বগুড়া-ঢাকা মহাসড়কে শেরপুর উপজেলার মহিপুর (হাজি হাজিপুর) নামক স’ানে মর্মানিত্মক দুর্ঘটনা দুটি ঘটে। নিহতদরে একজন হলেন হাজীপুর এলাকায় মৃত আব্দুল হামিদের স্ত্রী আমেনা বেগম (৫০)। নিহত অপর ৩ জনের নাম পরিচয় জানা যায়নি। আহতরা হলেন, লালমনিরহাট জেলার কালীগঞ্জ থানার কাকিনা গ্রামের তইব আলীর ছেলে রাসেল (২২), গাইবান্ধা জেলার সাদুল্যাপুর থানার ছোটগাছা গ্রামের আবদুর রাজ্জাকের ছেলে মেহেদী হাসান (২০), বরিশাল জেলার বাকেরগঞ্জ থানার সাহেবপুর গ্রামের রফিক হাওলাদরের ছেলে শাহিন (৩০)।

সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার ভোর ৫টায় ঢাকাগামী কলাবোঝাই একটি ট্রাকের (ঢাকা মেট্রো ট-২২-৯৬৪৫) সাথে বিপরীতমুখী রডবোঝাই ট্রাক (ঢাকা মেট্রো ট-১১-৮২৬৫) বগুড়া-ঢাকা মহাসড়কে শেরপুর উপজেলার মহিপুর (হাজি হাজিপুর) নামক স’ানে মুখোমুখি সংঘর্ঘ হয়। এ সময় দুর্ঘটনা কবলিত রডবোঝাই ট্রাকের পিছনে আরেকটি কাভার্ডভ্যান (ঢাকা মেট্রো ট-১১-৯৬৪৯) ধাক্কা দেয়। এতে রডবোঝাই ট্রাকের হেলপার এবং কলাবোঝাই ট্রাকের চালক ও হেলপার নিহত হন। এছাড়াও আরও ৩ জন গুরুতর আহত হন। দুর্ঘটনার কারণে ভোর ৫টা থেকেই ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা হতাহতদের উদ্ধার করে বগুড়া শহিদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়।
শেরপুর ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার রতন হোসেন জানান, হতাহতদের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি। অপরদিকে মহাসড়কে যানবাহন চলাচল শুরু হলে নাতি শাহরিয়ারকে (৭) স্কুলবাসে তুলে দেয়ার জন্য মহাসড়ক পারাপারের সময় একই স’ানে সকাল ৭টায় বাস চাপায় আমেনা বিবি (৫৫) নামের একজন নারী নিহত হয়েছেন। জানা যায়, ঢাকাগামী শ্যামলী পরিবহনের একটি বাস তাকে চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়। এতে ঘটনাস’লেই তিনি মারা যান। বাসটি আটক করা যায়নি।
শেরপুর ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট ফারুক আহম্মেদ ও ফিরোজ আহম্মেদ বলেন, তিনটি ট্রাকের সংঘর্ষের কারণে দুর্ঘটনার পর থেকেই প্রায় ৩ ঘণ্টা মহাসড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ট্রাকগুলো সরিয়ে নেয়ার পর সকাল সাড়ে ৭টায় যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।