স্টাফ রিপোর্টার : সূর্যকণা উচ্চ বিদ্যালয়ে ‘মিড ডে মিল’ এর উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল বুধবার এ উপলড়্গে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে মিড ডে মিলের উদ্বোধন করেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রম্নজ্জামান লিটন।
অনুষ্ঠানে মেয়র বলেন, রাজশাহীর প্রাচীন শিড়্গাপ্রতিষ্ঠান লোকনাথ স্কুলে ২০১২ সালে মিড ডে মিল চালু করেছিলাম। মিড ডে মিল চালু করার পরপরই এর সুফল পাওয়া গেছে। দুপুরের পর স্কুলে ক্লাস করার মতো শিড়্গার্থী পাওয়া যেত না, দুপুরের খাবার চালু করার পরে শিড়্গার্থীদের পালিয়ে যাওয়ার প্রবণতা কমে গেল, স্কুলে শিড়্গার্থীদের সংখ্যা বাড়লো। আগামীতে রাজশাহীর সব স্কুলে যাতে মিড ডে মিল চালু করা যায়, আমার সেই প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিড়্গা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর ড. সৈয়দ গোলাম ফারম্নক বলেন, আওয়ামী লীগের নির্বাচনি ইশতেহারে মিড ডে মিল চালু করার প্রতিশ্রম্নতি রয়েছে। তারা শিড়্গার্থীদের স্বাস্থ্যের ব্যাপারে যে অত্যনত্ম সচেতন তা এই ইশতেহার প্রমাণ করে। আমাদের দায়িত্ব হচ্ছে এই ইশতেহার বাসত্মবায়ন করা।
ইশতেহার বাসত্মবায়ন করার জন্য প্রধানমন্ত্রী ইতোমধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কাজ শুরম্ন করে দিয়েছেন। সারাদেশে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল চালু করা হবে। এই বছরের মধ্যে ৩০ হাজার স্কুলে মিড ডে মিল চালু হবে। আমাদের প্রচেষ্টা মাধ্যমিক বিদ্যালয়েও মিড ডে মিল চালু করার। আমরা লড়্গ্য করলাম রাজশাহীর মেয়র খায়রম্নজ্জামান লিটন ২০১২ সালেই একটি স্কুলে মিড ডে মিল চালু করেছিলেন। আমি বিশ্বাস করি সারাদেশের মধ্যে সবার আগে রাজশাহীর সব স্কুলে মিড ডে মিল চালু হবে। মিড ডে মিলে রাজশাহী হবে পাইওনিয়ার।
সূর্যকণা উচ্চ বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও ২১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নিযাম উল আযিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বিশেষ অতিথি ছিলেন রাজশাহী মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিড়্গাবোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মোহাঃ মোকবুল হোসেন, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিড়্গা অধিদপ্তর রাজশাহী অঞ্চলের পরিচালক প্রফেসর ড. কামাল হোসেন, উপ-পরিচালক ড. শরমিন ফেরদৌস চৌধুরী, জেলা শিড়্গা অফিসার মোহাঃ নাসির উদ্দীন ও মহানগর যুবলীগের সভাপতি রমজান আলী।
অনুষ্ঠানে সূর্যকণা স্কুলের পড়্গ থেকে প্রধান অতিথি এবং বিশেষ অতিথিবৃন্দকে সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়।
অনুষ্ঠানে সূর্যকণা উচ্চ বিদ্যালয় প্রধান শিড়্গক নজরম্নল ইসলামসহ অন্যান্য শিড়্গকবৃন্দ ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।