এফএনএস: রোহিঙ্গা সংকট নিরসনে মিয়ানমারের ওপর আনত্মর্জাতিক চাপ অব্যাহত রাখতে হবে বলে মনত্মব্য করেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার। এ সংকট সমাধানে মিয়ানমারকেই মূল ভূমিকা রাখতে হবে বলেও জানান মিলার। তিনি বলেন, এ বিষয়ে বাংলাদেশকে সমর্থন দিয়ে আসছে যুক্তরাষ্ট্র।
গতকাল মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সিলেটের ঐতিহ্যবাহী ক্বিন ব্রিজ পরিদর্শনকালে এ কথা বলেন রাষ্ট্রদূত মিলার। এ সময় সিলেট সিটি করপোরেশনের (সিসিক) মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী উপসি’ত ছিলেন। এ সময় মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, রোহিঙ্গারা যাতে নিরাপদে ফিরে যেতে পারে, সে লক্ষ্যে মিয়ানমারকে অবশ্যই উদ্যোগ নিতে হবে। আনত্মর্জাতিক সমপ্রদায় মিয়ানমারের ওপর চাপ দিয়ে যাচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্র শুরম্ন থেকেই তা করে আসছে। ২০১৭ সালের আগস্ট থেকে এ পর্যনত্ম রোহিঙ্গা ও স’ানীয় বাংলাদেশিদের সহায়তায় যুক্তরাষ্ট্র প্রায় ৫৫০ মিলিয়ন ডলার অনুদান দিয়েছে। আমি গত আট মাস এটাই বলে আসছি যে, মিয়ানমারকে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে হবে। এ বিষয়ে বাংলাদেশকে সমর্থন দিয়ে আসছে আমেরিকা। গতকাল মঙ্গলবার সকালে ক্বিন ব্রিজের উত্তর পাড়ে গাড়ি থেকে নেমে হেঁটে ব্রিজের দক্ষিণ পাড় পর্যনত্ম ঘুরে দেখেন রাষ্ট্রদূত মিলার। পরে আলী আমজাদের ঘড়ি দেখে মুগ্ধ হন তিনি। এ সময় মিলার বলেন, ক্বিন ব্রিজের মেরামতকাজ চলছে শুনে দেখতে এসেছি। ব্রিজের সঙ্গে আলী আমজাদের ঘড়ি সৌন্দর্য বাড়িয়েছে। ব্রিজ দিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেওয়া ও এর সৌন্দর্য বাড়ানোর পদক্ষেপে সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর প্রশংসা করে রাষ্ট্রদূত মিলার বলেন, এটি অন্য যেকোনো দেশের চেয়ে লম্বা পায়ে হাঁটার একটি ব্রিজ। এ সময় সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, ক্বিন ব্রিজ একটি ঐতিহ্যবাহী ব্রিজ। এই ব্রিজ ব্রিটিশদের তৈরি। রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার সিলেট সফরে এলে তিনি ব্রিজ সফর করেন। ব্রিজের দুই পাড় ঘুরে দেখেন তিনি। এ সময় সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী ও সরকারের যুগ্ম সচিব বিধায়ক রায় চৌধুরী, প্রধান প্রকৌশলী নুর আজিজুর রহমান, প্রকৌশলী শামছুল হক পাটোয়ারীসহ সিসিকের অন্যান্য কর্মকর্তা উপসি’ত ছিলেন।