বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক : রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রম্নয়েট) ১৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী শনিবার (১ সেপ্টেম্বর)। এটি দেশের চতুর্থ ও উত্তরাঞ্চলের সর্ববৃহৎ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়। রাজশাহী শহর থেকে তিন কিলোমিটার পূর্বে পদ্মার তীর ঘেঁষে বিশ্ববিদ্যালয়টি অবস্থিত। ১৫২ একরের সুবিশাল ক্যাম্পাসে প্রায় সাড়ে তিন হাজার শিড়্গার্থী অধ্যয়ন করছেন। মহাবিদ্যালয় থেকে পূর্ণাঙ্গ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়, অতঃপর সাফল্যের সঙ্গে ১৫ বছর পেরিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়টি।
দিবসটি বিশেষভাবে উদ্‌যাপনে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছে পুরো ক্যাম্পাস। গুরম্নত্বপূর্ণ ভবনগুলোতে করা হয়েছে আলোকসজ্জা। আবাসিক হলেও পৃথক কর্মসূচি আয়োজন করা হয়েছে। জন্মদিনে দিনভর সুশৃঙ্খলভাবে কর্মসূচি সফল করতে প্রস্তুতি শেষ করেছে কর্তৃপড়্গ।
আজ রোববার সকাল সাড়ে ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে জাতীয় পতাকা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে শুরম্ন হবে দিনের কর্মসূচি। সকাল পৌনে ১০টায় ফেস্টুন ও পায়রা উড়িয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করবেন উপাচার্য অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম সেখ।
এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ ছাত্রদের কবরে পুষ্পসত্মবক অর্পণ ও কবর জিয়ারত করবে প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। বেলা ১০টায় প্রশাসনের উদ্যোগে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়ে একটি আনন্দ শোভাযাত্রা বের করা হবে। শোভাযাত্রা শেষে সাড়ে দশটায় প্রশাসনিক ভবনের নিচে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কেক কাটা হবে।
পৌনে ১১টায় বৃক্ষরোপন কর্মসূচি পালন করা হবে। দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মাঠে প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। দিনের অন্যান্য কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে দুপুর পৌনে ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয় মিলনায়তনে ‘আইডিয়া কনটেস্ট’, সাবেক-বর্তমান শিক্ষার্থীরে সাথে মতবিনিময় এবং ডাটাবেইজ উদ্বোধন। সন্ধ্যায় ৭টায় থাকবে বিশ্ববিদ্যালয় দিবসের ফায়ার ওয়ার্কস।
রম্নয়েট সূত্র জানায়, ১৯৬৪ সালের ডিসেম্বরে ১২২ জন শিড়্গার্থী নিয়ে রাজশাহী প্রকৌশল মহাবিদ্যালয় নামে এ প্রতিষ্ঠানটির যাত্রা শুরম্ন করে। প্রতিষ্ঠার সময় এটি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে প্রকৌশল অনুষদ হিসেবে ছিল। ১৯৮৬ সালে এটি বাংলাদেশ ইনিস্টিটিউট অব টেকনোলজিতে (বিআইটি) রূপানত্মরিত হয়। দেশে ও বিদেশে প্রকৌশল শিক্ষার চাহিদা বৃদ্ধি এবং প্রকৌশল বিদ্যায় উচ্চতর ডিগ্রি ও গবেষণার সুযোগ তৈরি করতে ২০০৩ সালের ১ সেপ্টেম্বর রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় নামে পূর্ণাঙ্গ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে যাত্রা শুরম্ন করে।
বর্তমানে রম্নয়েটের ১৮টি বিভাগে প্রায় সাড়ে তিন হাজার শিড়্গার্থীর অধ্যয়নের সুযোগ রয়েছে। রয়েছে মানসম্মত শ্রেণীকড়্গ, গবেষণাগার, গ্রন্থাগার, ব্যায়ামাগার, ক্যাফেটেরিায়, ছাত্র ও ছাত্রীদের জন্য আবাসিক হলসহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা। শিড়্গার্থীদের পাঠদান ও গবেষণা কাজের তদারকিতে দুই শতাধিক শিড়্গক রয়েছেন।