দেশের বিভিন্ন নগরে সন্ত্রাসী ঘটনায় কিশোরদের জড়িত থাকার খবর পাওয়া গেলেও রাজশাহী নগরী শানত্মই বলা যায়। অতীতে এখানে জঙ্গিদের দৌরাত্ম্য থাকলেও তাদের দমনে সরকারের সাফল্য শানিত্ম প্রতিষ্ঠা করেছে। তবে সম্প্রতি এখানে বখাটেদের উৎপাত বেড়ে যাওয়ায় আবারও কিশোর অপরাধ বৃদ্ধির আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। গত বৃহস্পতিবার ভর দুপুরে ব্যসত্ম রাসত্মায় পুলিশী তলস্নাশির মুখে হামলাকারী তিন কিশোর আটক ও তাদের কাছ থেকে আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধারের ঘটনা চমকে ওঠার মতো।
কাদিরগঞ্জ চাউলপট্টি কড়াইতলা মোড়ে পুলিশের ওপর হামলার সময় আটক কিশোররা প্রত্যেকেই তরম্নণ শিড়্গার্থী। একজন রাজশাহী কলেজের ছাত্র। তলস্নাশির মুখে তারা পুলিশের ওপর হামলা করলেও পালাতে পারেনি। উপস্থিত লোকজনের সহায়তায় তারা আটক হয়েছে। উদ্ধার হয়েছে একটি বিদেশি পিসত্মল, ৬ রাউন্ড গুলি, ম্যাগজিন ও চাকু। পুলিশের ধারণা এরা ছিনতাইকারী।
এর আগে গত ঈদের আগে ও পরে নগরীতে ছুটিতে বাড়ি ফেরার পথে এক শিড়্গার্থী খুন, রাসত্মায় স্ত্রীকে যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করায় রম্নয়েট শিড়্গকের ওপর হামলাসহ বেশ কয়েকটি ঘটনায় জড়িতদের বখাটে বলেই চিহ্নিত করা হয়েছিল। নগরীতে কিশোর গ্যাংয়ের অসিত্মত্ব অস্বীকার করা হলেও স্থানীয় সংসদ সদস্য পুলিশের কাছে কিশোর অপরাধীদের তালিকা দিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। প্রশাসনের উদ্যোগে বখাটে ও মাদক বিরোধী অভিযানও শুরম্ন হয়েছিল। এ সবই নগরবাসীকে আশ্বসত্ম করেছিল।
কিন্তু পুলিশের ওপর হামলার ঘটনা কিশোর গ্যাংয়ের অসিত্মত্বের জানান দেবার মতই। স্থানীয় একটি দৈনিকের খবরে নগরীর প্রায় প্রতিটি মহলস্নায় কিশোরদের গ্যাং থাকার কথা বলা হয়েছে। তাদের মাদক সেবন, মাদক ব্যবসা, মেয়েদের উত্ত্যক্ত করা, আধিপত্য বিসত্মারে মারামারি ও ছিনতাইসহ নানা অপকর্মের সাধারণ মানুষের অতিষ্ঠ হয়ে ওঠার কথাও বলা হয়েছে। এই বাসত্মবতা অস্বীকার করার সুযোগ কমই।
বখাটে বা কিশোর গ্যাং যে নামেই ডাকা হোক এদের দৌরাত্ম্য দমন করা খুবই জরম্নরি। এ জন্য আইনী ব্যবস্থার পাশাপাশি সামাজিক ও পরিবারিক উদ্যোগের ওপর জোর দেয়ার বিকল্প নেই। কারণ সামাজিক-পারিবারিক বন্ধন ও মূল্যবোধের চরম অবড়্গয়ের কথা সবারই জানা। ফলে কিশোরদের আবেগ ও অ্যাডভেঞ্চারপ্রিয়তা এবং নিজেকে জাহির করার মানষিকতা ভুল পথে ধাবিত হচ্ছে। সমাজে গঠনমূলক তৎপরতার অভাব ও কিশোরদের বিকাশের পথ রম্নদ্ধ হয়ে পড়লে তারা অপরাধমূলক কাজে না জড়িয়ে পারে না। এ ড়্গেত্রে অপসংস্কৃতি, দলীয় সন্ত্রাস, মাদকাসক্তি, জঙ্গিবাদের প্রভাব পড়ে কিশোরদের ওপরই বেশি।
তাই এখনই কিশোর অপরাধীদের দমনে পরিকল্পিত ও সমন্বিত পদড়্গেপ গ্রহণ অপরিহার্য। রাজশাহী এখনও শানিত্মর নগরী হিসেবে পরিচিত। পরিস্থিতির আরও অবনতির আগেই কিশোর অপরাধীদের দমনে কার্যকর ব্যবস্থাই সবার কাম্য।