সোনালী ডেস্ক : বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন এমপি বলেছেন, সংবিধানকে ধর্মীয়করণের জিয়া-এরশাদের সংশোধনী বহাল রেখে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাসত্মবায়ন করা যায় না। বঙ্গবন্ধু ধর্মের রাজনীতি, জুলুম-শোষণ, সমাজে বিভাজনের বিরম্নদ্ধে সারা জীবন সোচ্চার থেকেছেন। সংবিধান রচনায় তারই প্রতিফলন ঘটেছিলো ধর্ম নিরপেক্ষতার মূল নীতির সংযোজনের মধ্য দিয়ে। অথচ এখন হেফাজতকে যুক্ত রাখতে পাঠ্যপুসত্মকে পরিবর্তন আনা হয়েছে, ভাস্কর্য্য অপসারণ করা হয়েছে, যাকে তাকে যখন তখন নাসিত্মক-কাফের আখ্যা দেয়া হয়েছে। সমাজে ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে সামপ্রদায়িকতা।
গতকাল শুক্রবার তোপখানা রোডস্থ ওয়ার্কার্স পার্টি অফিস চত্বরে বাংলাদেশ যুব মৈত্রীর উদ্যোগে “বঙ্গবন্ধু, ৭২-এর সংবিধানের চার মূলনীতি ও বাংলাদেশের বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট” শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
সাবেক মন্ত্রী মেনন বলেন, কেবল এক্ষেত্রেই নয়, বঙ্গবন্ধুর সমাজতন্ত্রের ধারণা থেকে আমাদের সমাজতন্ত্রের ধারণা ভিন্ন হলেও, অসমতা ও বৈষম্যের বিরম্নদ্ধাচারণ ও একটি সমতাভিত্তিক সমাজ ও রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে আমরা সব সময় একমত থেকেছি। কিন্তু সময়টাই পাল্টে গেছে। যারা কোনদিন বঙ্গবন্ধুকে বিশ্বাস করতেন না, এখনও করেন না তারাই বঙ্গবন্ধুর সবচাইতে বড় ভক্ত।
সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এমপি। তিনি বলেন, উন্নয়ন হচ্ছে, তেমনি উন্নয়নের সাথে পালস্না দিয়ে বাড়ছে বৈষম্য। বেকারদের কাজ দিতেও সরকার উদাসিন।
শোকাবহ আগস্টের আলোচনা সভায় রাজশাহী সদর আসনের এই সাংসদ বলেন, ১৪ দলের প্রধান শরিক আওয়ামী লীগের মধ্যে বিভিন্ন সত্মরে আজ স্বাধীনতাবিরোধীরা জায়গা করে নিয়েছে। যা ভবিষ্যতের জন্য হুমকি। বিএনপি-জামায়াত নিসেত্মজ হয়েছে কিন্তু পরাজিত হয়নি। আমাদের দেশের মানুষের মুক্তি আমাদের দেশের মানুষের আকাঙ্‌ক্ষা অনুয়ায়ী লড়তে হবে এবং সাধারণ মানুষের রাষ্ট্র কায়েমেও জনগণের আকাঙক্ষা বাসত্মবায়নে আমাদের সচেষ্টা থাকতে হবে।
বাদশা আরও বলেন, মুজিব কোর্ট গায়ে দিলেই আদর্শ ঠিক হয়ে যায় না, মুজিব কোর্টের ভিতরে বুকে হাত দিলে তার ভিতরে স্বাধীনতাবিরোধীরাও রয়েছে।
যুবমৈত্রীর কেন্দ্রীয় সভাপতি সাব্বাহ আলী খান কলিন্সের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় সদস্য শরিফ শামসির, যুবমৈত্রীর সহ-সভাপতি তৌহিদুর রহমান, সহ-সাধারণ সম্পাদক তাপস দাস, অর্থ সম্পাদক কাজী মাহমুদুল হক সেনা, সাংগঠনিক সম্পাদক প্রভাষক রেজোয়ান রাজা, দপ্তর সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজান, কেন্দ্রীয় সদস্য ইয়াদুল ইসলাম প্রমুখ।