এফএনএস: বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীরা যারা জীবিত অবস্থায় বিভিন্ন দেশে পলাতক আছে, তাদের দেশে ফিরিয়ে এনে শাসিত্মর আওতায় আনার চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর খামারবাড়ির মৃত্তিকা ভবনের আকামু গিয়াস উদ্দীন মিলকী অডিটোরিয়ামে আয়োজিত এক আলোচনাসভায় তিনি এ কথা জানান। মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউট এ সভার আয়োজন করে। প্রধান অতিথি আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, যখনই যুদ্ধবিধ্বসত্ম দেশের বিধ্বসত্ম-ভাঙাচোরা রাসত্মাগুলোর সংস্কার কাজ শুরম্ন হলো, ঠিক তখনই ১৯৭১ সালের পরাজিত শক্তি বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে। সে সময় দেশের বাইরে থাকায় তার দুই মেয়ে শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা প্রাণে বেঁচে যান। পলাশীর যুদ্ধে বিশ্বাসঘাতকতার জন্য মীরজাফরকে ইতিহাস এখনো ধিক্কার জানায়। ঠিক তেমনিভাবে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের ধিক্কার জানাই। দেশের মানুষের প্রতি বঙ্গবন্ধুর ভালোবাসার কথা উলেস্নখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুকে এক সাংবাদিক প্রশ্ন করেছিলেন, ‘আপনার সবচেয়ে বড় গুণ কী?’ উত্তরে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘আমি এ দেশের মানুষকে ভালোবাসি। এ দেশকে ভালোবাসি।’ তাকে আবার প্রশ্ন করা হয়েছে, ‘আপনার বড় দোষ কী?’ বঙ্গবন্ধু উত্তর দিয়েছিলেন, ‘এ দেশ ও দেশের মানুষকে ভালোবাসি।’
নিজের সামপ্রতিক ভারত সফরে দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে সাক্ষাতের বিষয়টি উলেস্নখ করে আসাদুজ্জামান খাঁন বলেন, নরেন্দ্র মোদী আমাকে বলেছেন- ‘তোমরা অনেক কিছুতেই আমাদের (ভারতের) চেয়ে এগিয়ে আছো’। মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউট পরিচালক বিধান কুমার ভান্ডারের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন, ড. আবদুল বারী প্রমুখ।