সোনালী ডেস্ক: নাটোরের নলডাঙা ও বগুড়ার শেরপুরে মাছ ধরতে গিয়ে পানিতে ডুবে বাবা-মেয়েসহ ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।
নাটোর প্রতিনিধি জানান, নাটোরের হালতিবিলে পেতে রাখা মাছ ধরার জাল তুলতে গিয়ে পানিতে ডুবে শাহিদা বেগম (২৮) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার আচঁরাখালি গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে। শাহিদা বেগম ওই গ্রামের মুক্তার হোসেনের স্ত্রী। নলডাঙা থানার ওসি শফিকুর রহমান জানান, সকালে মুক্তার হোসেন বাড়ির পাশে হালতিবিলে মাছ ধরার উদ্দেশে জাল পেতে রেখে আহসানগঞ্জ হাটে যান। দুপুরে তার স্ত্রী শাহিদা বেগম ওই জাল তুলতে পানিতে নামেন। এক পর্যায়ে গভীর পানিতে তলিয়ে যান শাহিদা। তখন স্থানীয়রা তাকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে নাটোর সদর হাসপাতালে নেয়ার পথে তিনি মারা যান।
বগুড়া প্রতিনিধি জানান, বগুড়ার শেরপুরে করতোয়া নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে বাবা-মেয়েসহ ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। মর্মানিত্মক ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার বিকালে উপজেলার করতোয়া নদীর চন্ডিজান এলাকায় ।
নিহতরা হলেন- শেরপুরের গাড়িদহ ইউনিয়নের চ-গ্িরামের বাসিন্দা উজ্জল কুমারের ছেলে অপূর্ব (৬), চন্দন কুমার (৩৫), ও তার মেয়ে কিরণবালা (৪) । অপূর্ব সম্পর্কে চন্দনের ভাতিজা বলে স্থানীয় সূত্র নিশ্চিত করেছ্ে‌ ।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে বাড়ির অদূরে করতোয়া নদীতে মাছ ধরতে যান চন্দন কুমার। এ সময় তার মেয়ে ও ভাতিজাও সঙ্গে যায়। নদীতে জাল ফেলে মাছ ধরার ফাঁকে কোনো এক সময় নদীর পানিতে ডুবে ওই ৩ জনই মারা যান। শেরপুর থানার ইন্সপেক্টর বুলবুল ইসলাম জানান, মৃত সকলের লাশ নদী থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। নদী পাড়ি দিতে গিয়ে স্রোতের কারণে তারা ডুবে গিয়ে মারা যায় বলে তিনি জানান। মৃতদের লাশ তাদের পরিবারের কাছে হসত্মানত্মর করা হয়েছে।