এফএনএস: মিয়ানমার থেকে নির্যাতনের মুখে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে দ্রম্নত ফেরত পাঠাতে বাংলাদেশকে সহায়তা অব্যাহত রাখবে থাইল্যান্ড। গতকাল বুধবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করে বাংলাদেশে থাইল্যান্ডের নতুন রাষ্ট্রদূত অরম্ননরাং ফতোং হামফ্রেইস এই কথা জানান।
প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম পরে সাংবাদিকদের ব্রিফিংয়ে এ কথা বলেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের সাথে থাইল্যান্ডের ৪০ বছরের পুরনো বন্ধুত্বপূর্ণ এবং সৌহার্দপূর্ণ সম্পর্ক। এই সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় তারা নিয়ে যেতে চান।
আনত্মর্জাতিক ও আঞ্চলিক ফোরামে ভৌগোলিক অবস্থানগত দিক থেকে বাংলাদেশ একটি গুরম্নত্বপূর্ণ দেশ। বাংলাদেশের শিল্প, বাণিজ্য ও জ্বালানি সেক্টরের উন্নয়নে থাইল্যান্ড এক সাথে কাজ করতে চায় বলেও জানান বাংলাদেশে নিযুক্ত থাই দূত। তিনি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ও নির্দেশনায় বাংলাদেশের ঈর্ষণীয় অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও প্রবৃদ্ধিরও প্রশংসা করেছেন তিনি বলেও জানান ইহসানুল করিম।
সাক্ষাতে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে সনেত্মাষ প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, রোহিঙ্গারা এখন বাংলাদেশের জন্য বিরাট বোঝা। তাদের ফেরত পাঠাতে মিয়ানমারের সাথে বাংলাদেশ, ভারত, থাইল্যান্ড, লাওস এরইমধ্যে আলোচনা করেছে। বাংলাদেশের খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্পে থাইল্যান্ডের সহযোগিতা চান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ইহসানুল করিম বলেন, তিনি বলেছেন, বাংলাদেশের সব ধরনের উন্নয়ন পরিকল্পনা তৃণমূলকে সম্পৃক্ত করে গ্রহণ করা হয়। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ গবেষণা করে উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করে থাকে। এজন্য এদেশের মানুষের মাথাপিছু আয় বেড়েছে, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান এ সময় উপস্থিত ছিলেন।