স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রম্নয়েট) এক ছাত্রীর শস্নীলতাহানির ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে এক অটোরিকশা চালককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার নাম শামসু ডলার ওরফে সুমন (৩৫)। নগরীর ভেড়ীপাড়া এলাকায় সুমনের বাড়ি। তার বাবার নাম আমান উলস্নাহ ওরফে রেন্টু।
গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর গতকাল বুধবার দুপুরে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। এ সময় আদালতে সুমনের সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন মামলার তদনত্ম কর্মকর্তা। নগরীর বোয়ালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিবারণ চন্দ্র বর্মণ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
তিনি জানান, রিমান্ড আবেদনের শুনানি হয়নি। শুনানিতে রিমান্ড মঞ্জুর হলে অটোচালককে পুলিশি হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তখন ওই ঘটনার সঙ্গে আর কে কে জড়িত ছিলো তা জানা যাবে।
প্রসঙ্গত, গত ১৯ আগস্ট রম্নয়েট থেকে ফেরার পথে অটোরিকশায় রম্নয়েটের তৃতীয় বর্ষের ওই ছাত্রীর শস্নীলতাহানি করা হয়। ওই ছাত্রী নিজেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে সে ঘটনা তুলে ধরেন। বলেন, অটোরিকশা চালকের যোগাসাজসেই তার শস্নীলতাহানি করা হয়। এ নিয়ে পরদিন তিনি থানায় মামলা করেন।
রাজশাহী মহানগর পুলিশের মুখপাত্র গোলাম রম্নহুল কুদ্দুস বলেন, অটোরিকশার পেছনে সাদা রঙ দিয়ে বড় করে ‘আলস্নাহু আকবার, সাদিয়া, তাওসিক পরিবহন, নামাজ কায়েম করম্নন’ লেখা ছিল। এই সূত্র নিয়েই অটো এবং চালককে শনাক্ত করতে সুবিধা হয়। পরে নগরীর শালবাগান এলাকা থেকে সুমনকে গ্রেপ্তার করা হয়।