স্টাফ রিপোর্টার: মাদক কারবারিকে সভাপতি করে গোপনে রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার একটি স্কুলের পরিচালনা কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সম্প্রতি উপজেলার মাটিকাটা উচ্চ বিদ্যালয়ে এই ঘটনা ঘটেছে। এ নিয়ে জেলা শিড়্গা অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।
স্কুলটিতে যাকে সভাপতি করা হয়েছে তার নাম নাসির উদ্দিন ওরফে নয়ন। তিনি এলাকায় মাদক ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত। ২০১৪ সালের ২৯ ডিসেম্বর তার এক কেজি হেরোইনের একটি চালান আটক হয়েছিল। ওই সময় তার বিরম্নদ্ধে মামলা হয়েছিল। এছাড়া ২০১৮ সালের ২৭ মার্চ নয়নের ভাগ্নে জসিম উদ্দিনের দোকান থেকে ৯০০ গ্রাম হেরোইন উদ্ধার করেছিল গোয়েন্দা পুলিশ।
গেল বছরের শেষের দিকে মাদকবিরোধী অভিযান জোরদার হলে নয়ন আত্মগোপন করেন। প্রায় ছয় মাস ছিলেন লোকচড়্গুর আড়ালে। এখন থাকেন এলাকায়। আর তাকে নিয়েই গোপনে এলাকার স্কুল পরিচালনা কমিটি করার অভিযোগ উঠলো। অবশ্য নয়ন স্কুলটির আগের কমিটিতেও সভাপতি পদে ছিলেন।
জানতে চাইলে জেলা শিড়্গা অফিসার নাসির উদ্দীন বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। এখনও তদনত্ম শুরম্ন হয়নি। তদনত্ম করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আর কোনো মাদক ব্যবসায়ী স্কুলের সভাপতি হতে পারবেন কি না সে ব্যাপারে নীতিমালায় কি আছে সেটা দেখা হবে। সে অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান তিনি।
নতুন কমিটি গঠন নিয়ে গত ২২ আগস্ট জেলা শিড়্গা অফিসারের কাছে এই অভিযোগ দেন আসাদুজ্জামান মাসুম ও আবদুল লতিফ নামের দুই প্রার্থী। অভিযোগে বলা হয়, নির্বাচনের তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র উত্তোলনের সময় ছিলো ২১ থেকে ২৩ জুলাই। ২৪ জুলাই যাচাই-বাছাই এবং পরদিন মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সময় ছিলো। নির্বাচনের দিন ঠিক ছিলো ৭ আগস্ট।
কিন্তু সভাপতি ও অভিভাবক সদস্য পদে এলাকাবাসীর ‘অনাকাঙ্খিত’ ব্যক্তিদের নিয়ে গোপনে কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটি অনুমোদনের জন্য জেলা শিড়্গা কর্মকর্তার কাছে পত্র পাঠানো হয়েছে। কিন্তু নির্বাচন না করেই কমিটি গঠন করা হয়েছে বিধিবহির্ভুতভাবে। তাই অভিযোগপত্রে এই কমিটি বাতিলের আবেদন করা হয়েছে।
অভিযোগকারী আসাদুজ্জামান মাসুম জানান, কমিটির সভাপতি করা হয়েছে নাসির উদ্দিন নয়নকে। প্রধান শিড়্গক ইসমত আরা কমিটির সম্পাদক। আর অভিভাবক সদস্য করা হয়েছে মনোয়ারা বেগম, আরমান আলী, মো. আলী, উজ্জল হোসেন ও সাদিকুল ইসলামকে। এছাড়া শিড়্গকদের মধ্যে থেকে কমিটিতে আছেন- সহকারী শিড়্গক রাশেদুল হক, খোরসেদ আলম এবং খালেদা খাতুন।
আসাদুজ্জামান মাসুম বলেন, নাসির উদ্দিন নয়ন এলাকায় মাদক ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত। একবার যেভাবেই হোক তিনি স্কুলের সভাপতি হয়ে যান। এবার এলাকার কেউ তাকে চাইছিলেন না। তাই আমরা ১০ জন মনোনয়নপত্র উত্তোলন করেছিলাম। কিন্তু কমিটি হয়েছে গোপনে।
স্কুলের প্রধান শিড়্গক ইসমত আরা বলেন, গত ৭ আগস্ট স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন ছিলো। উপজেলা শিড়্গা অফিসার দুলাল আলম সেদিন নির্বাচন না করে আমাকে কমিটির তালিকা দেন। শিড়্গা অফিসার নির্বাচনের প্রিসাইডিং অফিসার ছিলেন। তিনি কেন নির্বাচন করেননি সেটা আমি বলতে পারব না। শিড়্গা অফিসারের দেয়া তালিকার সদস্যদের নিয়ে আমি শুধু সভাপতি নির্বাচন করেছি। এই কমিটি গঠন নিয়ে জানতে উপজেলা শিড়্গা অফিসার দুলাল আলমকে ফোন করা হয়।
যোগাযোগ করা হলে নাসির উদ্দিন নয়ন কমিটি গঠন নিয়ে কোনো মনত্মব্য করতে চাননি। তবে তিনি দাবি করেছেন, তিনি মাদকের সঙ্গে জড়িত নন। তবে গোদাগাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর আলম জানিয়েছেন, নয়নের নামে তার থানায় একটি মাদকের মামলা আছে। তিনি তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী।