সোনালী ডেস্ক: ঢাকার উত্তরায় প্রাইম ব্যাংকের কার্যালয়ে কর্মরত অবস্থায় হঠাৎ অসুস্থ হয়ে মারা গেছেন ব্যাংক কর্মকর্তা গহর জাহান (৪৩)। তিনি রাজশাহী নগরীর মহিষবাথান এলাকার বাসিন্দা। তিনি ব্যাংকটির সিনিয়র এ্যাঙিকিউটিভ অফিসার ছিলেন।
গহর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী। লেখাপড়া শেষ করে ২০০১ সালে চাকরিতে যোগ দেন তিনি। ব্যক্তিগত জীবনে অবিবাহিত ছিলেন এই ব্যাংক কর্মকর্তা। তিনি তার বড় ভাই মারম্নফ নেওয়াজের উত্তরার বাসায় থাকতেন।
গত সোমবারই গহর জাহানের মরদেহ নেয়া হয় রাজশাহীর বাসায়। পরে মরদেহ দাফন করা হয়েছে। এর আগে সোমবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে হৃদরোগে আক্রানত্ম হয়ে নিজ চেয়ারে বসে থাকা অবস্থায়ই তিনি মারা যান বলে স্বজনরা জানিয়েছেন।
প্রাইম ব্যাংকের উত্তরার জসীমউদদীন রোড শাখা কার্যালয়ের সিসি ক্যামেরায় ধরা পড়া গহর জাহানের অসুস্থ হয়ে পড়ার ঘটনার একটি ভিডিও ক্লিপ ফেইসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে। এতে দেখা যায়, বেলা ১২টা ৩৩ মিনিটে গহর জাহানের ডেস্কে আসেন এক নারী গ্রাহক। ওই নারী গ্রাহকের কাছ থেকে একটি কাগজ নিয়ে নেড়েচেড়ে দেখছিলেন তিনি।
এ সময় একাধিকবার গালে, নাকে-মুখে ও চোখে হাত দিতে দেখা যায় গহরকে। পরে পাশে রাখা গস্নাস থেকে তিনবার পানি পান করেন তিনি। আরেকবার পানি পানের সময় তার মাথা সামনে কিছুটা ঝুঁকে আসে। একপর্যায়ে টেবিলে মাথা রেখে নুইয়ে পড়েন তিনি। তখন ওই নারী গ্রাহকসহ আশপাশের সহকর্মীরা এগিয়ে আসেন।
গহরকে সোজা করে চেয়ারে বসানোর চেষ্টা করেন একজন। কিন্তু চেয়ার থেকে নিচে পড়ে যান তিনি। এ সময় অন্য সহকর্মীরা ছুটে এসে তাকে টেনে তোলার চেষ্টা করেন। পরে সেখানে রেখেই কিছুক্ষণ তার সেবা-শুশ্রম্নষা করেন সহকর্মীরা। প্রায় ১০-১২ মিনিট পর তাকে নিয়ে হাসপাতালের উদ্দেশে রওনা হন তারা।
মৃতের ভাই মারম্নফ নেওয়াজ বলেন, হৃদরোগে আক্রানত্ম হওয়ার পর সহকর্মীরা গহরকে হাসপাতালে নিয়ে যান। তবে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়েছে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। প্রাইম ব্যাংকের জসীমউদদীন রোড শাখা কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক শারমিন আক্তার বলেন, আমরা শোকাহত, আমরা সত্মব্ধ। হাতের ওপর আমার বোন মারা গেলে কী বলব?