স্টাফ রিপোর্টার: একের পর এক ট্রেন লাইনচ্যুতির ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের প্রধান প্রকৌশলী আফজাল হোসেনকে অপসারণ করা হয়েছে। গত বুধবার রেলওয়ে মন্ত্রণালয়ের এক আদেশে তাকে রেলওয়ে ভবনের প্রধান প্রকৌশলী (জেডিইজি) হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আর এই পদের কর্মকর্তা আল ফাত্তাহ মো. মাসুদুর রহমানকে পশ্চিম রেলের প্রধান প্রকৌশলী হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।
সম্প্রতি পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের বিভিন্ন রম্নটে একের পর এক ট্রেন লাইনচ্যুতির ঘটনা ঘটে। ঈদের আগে থেকে নজিরবিহীন সিডিউল বিপর্যয়ও চলছে। শুক্রবার পর্যনত্ম সিডিউল বিপর্যয় কাটেনি। এ অবস্থায় গত মঙ্গলবার পশ্চিম রেলের মহাব্যবস্থাপক খোন্দকার শহিদুল ইসলামকে রেলওয়ে ভবনে টেনে নেওয়া হয়। এরপরই টেনে নেওয়া হলো প্রধান প্রকৌশলী আফজাল হোসেনকে। এক সপ্তাহের মধ্যে পশ্চিম রেলের শীর্ষ দুই কর্মকর্তা বদলি হলেন। অবশ্য বদলি হলেও খোন্দকার শহিদুল ইসলাম পেয়েছেন পদোন্নতি।
তবে রেলওয়ে সূত্র নিশ্চিত করেছে, সমপ্রতি একের পর এক ট্রেন লাইনচ্যুতির ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে প্রধান প্রকৌশলী আফজাল হোসেনকে বদলি করা হয়েছে। ছয় মাস আগে তিনি প্রধান প্রকৌশলী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন। এরপর পশ্চিম রেলের প্রায় সবগুলো লাইনেই ট্রেনের গতি কমিয়ে আনা হয়। কিন্তু তার পরেও সমপ্রতি পশ্চিমাঞ্চলে পর পর ট্রেনের বগি লাইনচ্যুতের ঘটনা ঘটে।
সম্প্রতি রাজশাহীর চারঘাট উপজেলায় তেলবাহী ট্রেনের আটটি ওয়াগন লাইনচ্যুত হয়। এতে রাজশাহীর সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগ ২৮ জন্যর জন্য বন্ধ ছিলো। সর্বশেষ গত ১৮ আগস্ট ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরে খুলনাগামী ট্রেনের একটি বগি লাইনচ্যুত হয়। এর প্রায় ৮ ঘণ্টা পরে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয় দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে।
বদলির বিষয়ে জানতে চাইলে প্রকৌশলী আফজাল হোসেন বলেন, আমি নিজেও চাইছিলাম বদলি হতে। কারণ এই কয়মাসে কাজ করতে গিয়ে আমি হাঁপিয়ে উঠেছিলাম। এরই মধ্যে আমাকে বদলি করা হয়েছে। যিনি দায়িত্ব নিবেন ওখানে, তাঁর স্থলে আমাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তবে আমি সাধ্যমত চেষ্টা করেছি পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের জন্য কিছু করার।