এফএনএস: দুষ্টু ঠিকাদারদের বস্ন্যাক লিস্ট করার নির্দেশ দিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। গতকাল বৃহস্পতিবার পাবলিক-প্রাইভেট স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে আলোচনা সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী সংশিস্নষ্টদের এ নির্দেশনা দেন।
দুষ্টু ঠিকাদার প্রসঙ্গে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, আমি ফুললি সাপোর্ট করছি, দুষ্টু ঠিকাদারদের বস্ন্যাক লিস্ট করম্নন। এলজিইডি (স’ানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর) ও, পিডিবি (বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড), পানি উন্নয়ন বোর্ড, বাংলাদেশ পলস্নী উন্নয়ন বোর্ড, পিডাবিস্নউডি জানে না কারা কারা দুষ্টু ঠিকাদার। এদের বস্ন্যাক লিস্ট করে ইন্টারনাল সার্কুলেট করেন। দুষ্টু ঠিকাদারদের কাজে রাখার কোন মানে হয় না। সিপিটিইউ (সেন্ট্রাল প্রকিউরমেন্ট টেকনিক্যাল ইউনিট) এদের খুঁজে বের করবে।
পরিকল্পনামন্ত্রী আরও বলেন, উন্নয়নের মোট দু’টি বাঁধা আছে, একটা নাই বললাম অন্যটি ঠিকাদার। তারা কাজ নিয়ে বসে থাকে শুরম্ন করে না। ঠিকাদাররা অহেতুক প্রকল্পের কালক্ষেপণ করেন। এটা উন্নয়নের খারাপ দিক। আমরা দেখছি কিছুকিছু সিমেন্ট কোম্পানি ঠিকাদারদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে। আমরাও ঠিকাদারদের প্রশিক্ষণ দিতে পারি। এসএসসি পস্নাস অনেক ঠিকাদার আসছে তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া সহজ হবে। এদেশে অভিযোগের শেষ নেই। অনেক কর্মকর্তাও ইট-সিমেন্ট সমন্ধে কিছু বোঝেন না অথচ ঠিকাদারদের ধমক দিয়ে থাকেন ইট ভালো না সিমেন্ট ভালো না। এসব কিছু বন্ধ হওয়া দরকার। আমরা উভয়ের স্বার্থ দেখবো।
তিনি আরও বলেন, বড় প্রকল্প এলাকায় সিসিটিভি ক্যামেরা ব্যবহার করবো। এ দেশ এখন সিসিটিভি ক্যামেরার দেশ হয়ে যাচ্ছে। আমার মনে হয় সিসিটিভি ক্যামেরা বাংলাদেশে বেশি ব্যবহার হচ্ছে।
এমএ মান্নান বলেন, এবার প্রথম মাসেই বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি ভালো বাসত্মবায়ন হয়েছে। আমরা পিডি’র টাকা সরাসরি দিয়ে দিয়েছি। এবার শুরম্নতেই আমরা ছক্কা মেরেছি।
মন্ত্রী বলেন, সরকার আসার আগে প্রকল্পটি শুরম্ন হয়েছিল ২০০৮ সালে। ব্যয় প্রায় ৬ কোটি ডলার। বিদেশি ঋণে প্রকল্পটি বাসত্মবায়িত হচ্ছে। এদেশে ধারণা সৃষ্টি হয়ে গেছে বাইরে থেকে যা আসে সবই হয়তো এমনি এমনি আসে। কিন’ না ঋণের টাকায় প্রকল্পটি বাসত্মবায়িত হচ্ছে, এটি ২২ সালে সম্পন্ন হবে। প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য হবে জনগণকে সম্পৃক্ত করতে হবে। প্রকল্পের টাকা সঠিকভাবে ব্যয় করতে হবে। কোনোভাবেই জনগণের টাকা অপচয় করা যাবে না। আপনারা আসুন আমার সঙ্গে কথা বলুন।
সভায় উপসি’ত ছিলেন আইএমইডি সচিব আবুল মনসুর মো. ফয়েজ উলস্নাহ, পরিকল্পনা বিভাগের নূরম্নল আমিন, সিপিটিইউ মহাপরিচালক আলী নুর, বিশ্বব্যাংকের ঢাকা কার্যালয়ের মুখ্য ক্রয় বিশেষজ্ঞ জাফরম্নল ইসলাম প্রমুখ।