সোনালী ডেস্ক: মাওলানা আজাদ কলেজের বেকার হোস্টেলের ২৪ নম্বর কক্ষ এখন ‘বঙ্গবন্ধু স্মৃতিকক্ষ’। ১৯৪৫-১৯৪৬ শিক্ষাবর্ষে কলকাতার তৎকালীন ইসলামিয়া কলেজের ছাত্র ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি বেকার হোস্টেলের ২৪ নম্বর কক্ষে থাকতেন। শোকের মাস আগস্টে এবার বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে কোলকাতার এই কক্ষটি ঘুরে আসছেন বঙ্গবন্ধুপ্রেমীরা।
শোকের মাসে জাতির জনকের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে বাংলাদেশ থেকে বেকার হোস্টেলে যাওয়া রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক মীর ইসতিয়াক আহম্মেদ বলেন, এই অনভূতি অসাধারণ। যে কক্ষে বঙ্গবন্ধু থেকেছেন, সেখানে দাঁড়িয়ে তার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানানো আমাদের জন্য সত্যিই গর্বের।
একই সঙ্গে যাওয়া রাজশাহীর আরেক আওয়ামী লীগ নেতা পঙ্কজ দে বলেন, এই হোস্টেলের তিনতলায় উঠলেই মনে হয়, বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিগুলো এখানে জমা আছে। সেখানে যাওয়া আরেকজন রাজশাহীর ছাত্রলীগ নেতা তাসকিন পারভেজ শাতিল ছবিগুলো ফেসবুকে শেয়ার করেছেন।
শুধু এভাবেই নয়, ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসে ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশিরাও বেকার হোস্টেলে বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ করেছেন। এদিন সকাল আটটায় ২৪ নম্বর কক্ষে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান করেন কলকাতায় নিযুক্ত বাংলাদেশের উপহাইকমিশনার তৌফিক হাসানসহ উপহাইকমিশনের কর্মকর্তা ও কলকাতার বিশিষ্টজনেরা। একই সঙ্গে বেকার হোস্টেলের এই স্মৃতিবাহী কক্ষের সামনে স্থাপিত বঙ্গবন্ধুর আবক্ষ ভাস্কর্যেও মাল্যদান করা হয়।
কলকাতায় সোনালী ব্যাংক, বিমান বাংলাদেশসহ কয়েকটি সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকেও মাল্যদান করা হয় বঙ্গবন্ধুর আবক্ষ ভাস্কর্যে। আরও মাল্যদান করেন বাংলাদেশের বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আতিউর রহমান, বাংলাদেশের সংসদ সদস্য অ্যারোমা দত্ত প্রমুখ।