স্টাফ রিপোর্টার: বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এমপি বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশকে আবারো পাকিসত্মানি ধারায় নিয়ে যাওয়ার ষড়যন্ত্র শুরম্ন হয়েছিল।
তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর হত্যার পর খন্দকার মোশতাক আহমেদ, এরপর জিয়াউর রহমান সামরিক শাসন জারি করে ড়্গমতা দখল করেন। এরপরই দেশকে পাকিসত্মানি ধারায় নিয়ে যাওয়ার জন্য একের পর এক পদড়্গেপ নেওয়া হয়।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলড়্গে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে রাজশাহী মহানগর ওয়ার্কার্স পার্টি নগরীর সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে দলীয় কার্যালয়ে এ সভার আয়োজন করে।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে পার্টির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, সংবিধান সংশোধনের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশকে পাকিসত্মানি ধারায় নিয়ে যাওয়ার প্রথম পদড়্গেপ নেওয়া হয়। একটি বিশেষ আইন, ইনডিমিনিটি বিল পাশ করিয়ে সংবিধানে পরিবর্তন আনা হয়। এই বিশেষ আইনের অর্থ বঙ্গবন্ধুর হত্যার বিচার করা যাবে না। এই যে আইন পাশ করা হয় তাতে বোঝা যায়, জিয়াউর রহমান নিজে এই হত্যার দায়িত্ব কাঁধে নিলেন।
রাজশাহী-২ (সদর) আসনের এই সংসদ সদস্য বলেন, বঙ্গবন্ধুকে যারা হত্যা করেছে, ড়্গমতা দখল করেছে তারা বাংলাদেশকে কোন দিকে নিয়ে যেতে চায় পরবর্তী পদড়্গেপে তা আরও স্পষ্ট হলো। তারা পাকিসত্মান থেকে গোলাম আযমকে দেশে ফিরিয়ে এনেছে। যে গোলাম আযম, নিজামী আলবদর বাহিনী গঠন করে মুক্তিযোদ্ধাদের হত্যা করেছে তাদের রাজনীতি করার অধিকার দেওয়া হলো।
আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন মহানগর ওয়ার্কাস পার্টির সম্পাদক ম-লীর সদস্য অ্যাডভোকেট এনত্মাজুল হক বাবু। সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক দেবাশীষ প্রামানিক দেবু্‌। উপসি’ত ছিলেন- নারী মুক্তি সংসদের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি অধ্যাপিকা তসলিমা খাতুন, নগর ওয়ার্কার্স পার্টির সম্পাদক ম-লীর সদস্য সাদরম্নল ইসলাম, সদস্য তৈয়বুর রহমান, যুবমৈত্রীর কেন্দ্রীয় সভাপতি সাব্বাহ আলী খান কলিন্স প্রমুখ।