স্টাফ রিপোর্টার: শোকাবহ আগস্ট মাসের দশম দিন আজ। ১৯৭৫ সালের এ দিনেও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন বাংলাদেশের আপামর তরম্নণ সমাজের হৃদয়ের প্রতিধ্বনি। কেননা- বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ- ঠাকুরের সেই অমর পংক্তি ‘ঐ নতুনের কেতন উড়ে কালবৈশাখী ঝড়, তোরা সব জয়ধ্বনি কর, ওরে তোরা সব জয়ধ্বনি কর’- তিনিও সেই মন্ত্রেই দিড়্গীত ছিলেন। তাই আমৃত্যু তিনি তারম্নণ্যেরই জয়ধ্বনিই করে গেছেন। অবশ্য তিনি নিজেও ছিলেন এক আজন্ম তরম্নণ।
প্রকৃতপড়্গে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অমর কবিতা- ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণেও সেই সময়ের যুব সমাজের প্রাণের ধ্বনিই তিনি প্রতিধ্বনিত করেছিলেন। তাইতো বঙ্গবন্ধুর সে সময়ের ঘনিষ্ঠ সহচরদের মধ্যে দুই চারজন ছাড়া বাকি সবাই ছিলেন বয়সে তরম্নণ। তাদের মধ্যে আওয়ামী লীগ নেতা আবদুর রাজ্জাক, তোফায়েল আহমেদ, শেখ ফজলুল হক মনি, আবদুল কুদ্দুস মাখন প্রমুখ নেতৃবৃন্দ বঙ্গবন্ধুর অত্যনত্ম আস্থাভাজন ছিলেন। তখনকার ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ, ছাত্রলীগ, ছাত্র ইউনিয়নসহ প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনগুলো বঙ্গবন্ধুর নির্দেশ অড়্গরে অড়্গরে মেনে চলতো। শুধু তাই নয়, আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারীরা অধিকাংশই বয়সে তরম্নণ ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর ভাষণ ও দিকনির্দেশনায় এই তরম্নণগোষ্ঠীই আমাদের স্বাধীনতাকে ত্বরান্বিত করেছিল।
মূলত: বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের অবিস্মরণীয় এক কীর্তিও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষণ। তেজদীপ্ত এ ভাষণ বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের মূল ভিত্তিই শুধু নয়, এই ভাষণ পৃথিবীর ইতিহাসে সারাজীবন এক অনন্য দৃষ্টানত্ম হয়ে থাকবে। বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচরদের সূত্রে জানা যায়, এই ঐতিহাসিক ভাষণ তিনি আকস্মিকভাবে দেননি, বুঝেশুনে চিনত্মা করে তিনি এ ভাষণ দিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধু ভাবতেন তরম্নণ যুব সমাজ ছাড়া স্বাধীনতা আন্দোলন যেমন গড়ে তোলা সম্ভব নয়, ঠিক তেমনি যুব সম্প্রদায় ছাড়া স্বাধীনতা রড়্গা করাও অসম্ভব।
বাংলাদেশের ইতিহাস বিকৃতির ধারাবাহিকতায় ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের পরবর্তী সরকারগুলো ইতিহাসের এ জ্বলনত্ম অধ্যায়কেও মুছে ফেলার চেষ্টা চালিয়েছে। কিনত্মু তাদের ইতিহাস বিকৃতির সেই অপচেষ্টা ধুপে টিকেনি। সময়ের ব্যবধানে নতুন প্রজন্ম প্রকৃত ইতিহাস জানে নিয়েছে। ১৯৭১ সালের ৭ মার্চে দেয়া বঙ্গবন্ধুর সেই ঐতিহাসিক ভাষণে স্বাধীনতার যে মূলমন্ত্র, চেতনা ও দিক-নির্দেশনা প্রজ্বলিত ছিল তা নতুন করে উপলব্ধির সময় এসেছে। বর্তমান মহাজোট সরকার এই শোকের মাসে বঙ্গবন্ধুর ত্যাগ-তিতিড়্গার ও সংগ্রামের সেই চেতনাকে সর্বত্র ছড়িয়ে দেবে সেটাই এখন দেশবাসীর প্রত্যাশা।